পাতা:বাঙ্গালা ভাষার অভিধান (প্রথম সংস্করণ).djvu/৪০৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কাদা —ধানগাছের রোগবিশেষ ; ধানগাছের গোড়ায় পাক জমিয়া পচ ধরিলে কাদামারা রোগ ৰলে : কেদে] থ । কাদীপেন্ডু কোণ দ্রঃ বি মীরজ জনিত উৎসব । স্ত্রীলোকের পুনৰ্ব্বিবাহের সময় কাদা মাথিয় যে খেউড়, পাচলি প্রভৃতি গান হয়, তাহার নাম কাদাড়ে। প্র—"আগ কাঞ্চ নারি চিতে। কি করি বাড়িছে পুথি বিষাদ তাহাতে।” -cकोछूक-रिजांन । কাদার্থোচ কোদা (কর্দম)+খোচা (খোজ ধাতু গমনার্থে-কৰ্দমে যে গমনাগমন করে বা খনন করে ) যে চঞ্চুদ্ধার কর্দম খনন করিয়া বা খুচাইয়া আহার অন্বেষণ করে | বি, খঞ্জনজাতীয় পক্ষিবিশেষ ; চাহ (হি) snipe. প্র—“হংস বক কাদাপোচা বালুচরে চরে ”। —ফুলরেণু কাদাটিয়া। কাদা দ্রঃ। চ—কাদাটে। কাদ (অক্ত—আত্ত—আট ) ] বিণ কর্দমমুক্ত : ঘোলা । কাদান (নো) [ কাদা দ্রঃ ] ক্রি, জলমগ্ন ক্ষেত্রের মাটি চযা ৷ ২ ৷ বিণ. ঘোলা ; অস্বচ্ছ । কাদা ( ) [ কাঠদা—দ্রুত উচ্চারণে क्,ि कॉर्टल : कॉफ़ोंब्रि ; छ । কান্দ্রবেয় ( কাদূদ্রোবেয় ) { কন্দ্র ( কগুপ ভাৰ্য্যা, সর্পমাত )+এর (অপত্যার্থে এয়ন) বি, পুং, কদ্রুর তনয় : সৰ্পগণ । কান ( কান) [ কিন্নর শব্দজ ] বি, সঙ্গীত ব্যবসায়ী জাতিবিশেষ । ২। জাতীয় পদবী বিশেষ। যথা, মধুকান। ৩। পক্ষিবিশেষ ৪ । [পা—কণুহ ; হি-কনহা বৈ-পদ-সা— কাহ্নকানাই, কামু, কান ] কানাই ; কৃষ্ণ প্র—“সই এমন সুন্দর বর কান ৷ হেরিয়া সে মুরতি সতী ছাড়ে নিজপতি তেয়গিয়া লজ্জা ভয় মান ॥" —চণ্ডীদাস , “তো বিনে উনমত কান” —বিদ্যাপতি কান (ন) [ সং–কর্ণ—প্রাকৃ—ক-কাণ (দ্রঃ) কান। বাং-তে—“ন’ অধিক প্রচলিত বি, কৰ্ণ ; শ্রবণেন্দ্রিয়। ২। [কানের আকৃতি বলিয়| ] কানের গহনা : কর্ণালঙ্কারবিশেষ ৩ । বেহালা, তানপুর, সেতার প্রভৃতি তত যন্ত্রের তার বাধিবার কাঠ বা খুঁটা। ৪ অস্ত্রাদি রাখিবার আলার দুই ধারের খুঁটা ৫ । কানা ; ধার ; প্রান্ত । কান কটকট করা—কানের ভিতর ফোড়া পাকিলে কটকট করিয়া কামড় দিবার মত যন্ত্রণ বোধ হওয়া। কানকথা—মন্ত্রণা । প্ৰ—“সঘনে নাড়ির শিরে, চাতুর প্রবন্ধে ধী:ে ভাড় দত্ত কৃহে কানকথা।” –কবিকঙ্কণ। কানকাটা-কাণকটি গ্রঃ ଏ୭୩୯୬ কানকুআ, য়া-কাণকুর ত্রঃ । কোটারি—কাণকোটারি গ্রঃ। কানখড়কিয়া ( কালুখোড় কিমা ) { গ —কান্খোড়কে। কাণ—হি—খটকা=সতর্ক কাণখড়খড়ি, (বিরল ) ] বিণ, শ্রবণে সতর্ক ; খুব মৃদু শব্দও যে শুনিতে পায়। কানখাড়া (न्) [ कांन ( श् ि)-४ांप्लl=म७ग्रमांन । অ্যাদির সাদৃষ্ঠে বি৭, শুনিতে সতর্ক ; কোন বিষয় শুনিতে কর্ণকে অধিকতর নিয়ে|জিত রাখা। কানখুন্ধী [কানের—খুী ( শলাকা ) ৬তৎ ]বি, কর্ণমল নির্গত করণের ৰন্থ : কর্ণশোধনী। কানচটা ( ন ) বি, বৃক্ষছালের উপর জন্মে যে কর্ণাকার ছাত । ২। কাণের শুকনা ছাল। কান বাবী করা, বাই বাই করা —কানের ভিতর বিবি পোকার ডাকের মত শব্দ অনুভব করা। কানঝাপ দেওয়া —কাহার উদরে কান পাতিয়া পেটের ভিতরে পদ শোনা। কানঝাপটা— কানের অলঙ্কারবিশেষ ৷ ২ ৷ কাকপক্ষ ; জুলফি । কানঝাড়া দেওয়া—আলস্ত ত্যাগ করা ; সতর্ক হওয়া ( জীবজন্তুর দেখিয়া ) । কান ঝালাপালা, ঝালাফালা করা—কানের ভিতর নানা প্রকার শব্দ একসঙ্গে প্রবেশ করিয়া কৰ্ণ পীড়া জন্মান । কানতড়পা (ন, ড়) বি. কর্ণভূষণবিশেষ । কান দেওয়া–কর্ণপাত করা ; শোনা । ( şH-stt–lending one's ear). Koi." দেখান—কানের খলি বাহির করাইবার জন্ত কান দেখান। কানধরা—ভৎসনাচ্ছলে পরের কান স্পর্শ করা ; অপমান করা ৷ ২ ৷ ভবিষ্যতে সাবধান হইবার প্রতিজ্ঞচ্ছিলে নিজের কান স্পর্শ করা । কানপীকা— কর্ণরোগবিশেষ ; এই রোগের প্রথম অবস্থায় কাণের ভিতর ফোলে, কটুকটু করে ও শেষে পূব হয়। কানপাট কান (কর্ণ) পাট (পট্ট শব্দজ) হি—কানপটী ] বি. কর্ণের নিকটস্থিত লম্বিত চুল ; জুল্পী । ২ । কানের নিম্নস্থ কোমল অংশ ; যেখানে ফুল, ইয়ারিং প্রভৃতি ধারণ করে । কানপাতলা—বিণ, কোন কথা সহজেই যাহার কালে প্রবেশ করে ; যাহার কান কথার ভার সহ করিতে পারে না ; যে বিচার না করিয়াই পরের কথা ও লাগালাগি শুনে। কানপাত (ন) ক্রি, কোন কিছু শুনিবার জন্ত শব্দাভিমুখে কান রাখা ; মনোযোগের সহিত শোনা । প্র—“তখন চারিদিকের কোলাহল হইতে ক্ষণকালের জন্য মনটাকে টানিয়া সেইদিকে, আমরাও কান পাতিয়া দাড়াই।”—চারিত্র পূজা। কানের পাতা কাণ | কান —কর্ণপত্র ; পত্রাকার কালের চৰ্ম্ম : lole of the ear. কানফাট [श्-िकन्को] বি, এক সম্প্রদায় যোগী যাহার কানের পাত চেরা হয় : কাণফাটা যোগী। কান ফাটান-চীৎকার করির কানে তালা ধরান ; কৰ্ণ বিদীর্ণ করা। তুল—হি—কান ষোড়না। কানবালা [ কর্ণবলয় ] ধি, কানের অলঙ্কার ; কনককুণ্ডল। কান বেঁধা-মাকড়ী প্রভৃতি পরিবার জন্ত কানে ছিদ্র করা। ২ । [ কর্ণবেধ ] সংস্কারার্থ কর্ণবেধ করা ; ণিজন্ত,—কান বেঁধান। কানের বিধ—কানের ছিদ্রপথ ; কর্ণরন্ধ ; মাকড়ী প্রভৃতি পরিবার মত কানের পাতায় ছিদ্র । কান ভাঙ্গন ( কানভাঙানো ) বি, গোপনে নানা বিরুদ্ধ কথা বলিয়| অসন্তোষ জন্মান ; কুমন্ত্রণা, দান করা । কান ভার। [ কান—ভার ( মন্ত্র দ্বারা স্তম্ভন )] ক্রি, কানে এমন সকল মন্ত্রণা দেওয়া যাহাতে পরে কাহার ভালমন্দ কোন কথাই কানে প্রবেশ না করে। কান ভারি করা—ক্রি, কান . নানা বিরুদ্ধ কথায় ভারাক্রান্ত করা ; কুমন্ত্রণা দ্বারা অসন্তোষ জন্মান। কান ভো ভেঁ করা–কানের ভিতর ভো ভো শব্দ হওয়া ; অত্যন্ত দুৰ্ব্বলতা জনিত কানে ঐক্লপ শব্দ অনুভব করা যায়। কানমলা (ন) [ কর্ণমল শব্দজ ] বি, কর্ণ বিবরস্থিত মল : কানের মলা ; থলি । ২ । কর্ণ মর্দন ; কান মোচড়া : কামুটি ৷ ৩ ৷ ক্রি, কানে পাক দেওয়া ; কান মলিয়া অপমান করা । কান মল খাওয়া—অপমানিত হওয়া । ( ২ ) ঠকিয়া রীতিমত শিক্ষা পাওয়া। কানমুখা, মুতা (ন) [সং–কর্ণমূল] বি কর্ণফুল ; কর্ণের নিকটবৰ্ত্তী স্থান। কানমোচড়া (ন, ) { কর্ণমর্দন ] কানমলা : কান পাকাইয়া দেওন : তামাসা : পরিহাসসুচক • কর্ণমর্দন । ( ২ ) তিরস্কার স্বচক । (৩) ভবিষ্যতে সতর্ক বা সাবধান স্বচক বা অনুতাপজ্ঞাপক স্বহস্তে মর্দন ; এই অর্থে প্রায় নাকখত্তা, কান মোচড়া। কানে আঙ্গুল দেওয়া—অশ্রাব্য বিষয় কানে প্রবেশ করিতে না পারে এজন্য শ্রবণবিবর আঙ্গুল দিয়া বন্ধ , করা ; কোন কিছু না শোনা । কানে উঠা —কর্ণগোচর হওয়া । কানে কাণ, কানে কীন (কানেকান্‌) [সং–কর্ণ; कृ-किनांब्र ( थांब्र, थांख्) ; श्-िकिनांब्रां : বাং—কান ] ক্রি-বিণ কানায় কানায় ; মুখে মুখে ; ছাপাছাপি। প্র—“কানায় কানায় পূর্ণ আমার পরাণ”—রবীন্দ্র । কানে কানে . —ক্রি-বিণ, কর্ণকুহরের সমীপে। ২। পাত্রের ধার পর্য্যস্ত ; কানায় কানায় । কানে কথা