পাতা:বিচিত্রা (প্রথম বর্ষ দ্বিতীয় খণ্ড).pdf/১৫৫

উইকিসংকলন থেকে
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

百百到云三 उष्मांडपी पूछे বেতারের সাহায্যে বহুদূরের লোককে দেখিতে পাওয়া আমাদের পক্ষে এখন সম্ভবপর হইয়া উঠিয়াছে। তরুণ বৈজ্ঞানিক জন বেয়ার্ড, “টেলিভিসন সম্পূর্ণ নিখুত করিয়া তুলিবার পর বিজ্ঞান জগতে আর একটি সত্যের সন্ধান आनिब्रा निभाएछन, अभिांप्नद्ध छू४ि-अखिा थांब्र७ याgाश्मा তুলিয়াছেন। গভীর অন্ধকারে বা ঘন কুয়াশার মধ্যেও দেখিতে পাওয়া যাইতে পারে। ইহার তিনি নাম দিয়াছেন “নক্টোভিসন। মনুষ্য চক্ষের অগোচর ইনফ্রা-রেড (Infrared) রশ্মির সাহায্যে টেলিভিসনের আদান যন্ত্রের (Receiving apparatus ) দ্বারা দুরে অন্ধকারে রক্ষিত যে কোনও বস্তু বেশ স্পষ্টভাবে দেখিতে পাওয়া যায়। ইনফ্রা-রেড রশ্মি আমাদের চক্ষে ধরা দেয় না বটে। কিন্তু বেয়াডের যন্ত্রের যে বৈদ্যুতিক চক্ষু আছে তাহা হইতে डांशब्र वांब्र लूकई fाब्र ठश्राद्म नांत्र । লেনদের সাহায্যে সার্চ-লাইট যেমন দূর হইতে ইচ্ছামত যে কোনও বস্তুর উপর প্রতিফলিত করা যায় এই অদৃশ্য রশ্মিও তেমনি ভাবে টেলিভি, সনের আদানের পর্দার উপর বহুদূর হইতে প্ৰতিফলিত করিতে পারা बांग्र। dजिडिनएनब्र यज्ञ शश्ब्रों পরীক্ষা করিবার সময়ে বেয়াড এই নক্টোভিসনের সন্ধান পান। টেলিভিসনে যে ব্যক্তির মূৰ্ত্তি প্ৰতিফলিত করিতে হইবে, পূর্বে তাহাকে অত্যন্ত উজ্জ্বল আলোকে বসিতে হইত, সে SobY সংগ্ৰহ আলোকের প্রখরতায় তার মনে হইত দুই চক্ষু যেন অন্ধ হইয়া আসিতেছে, সর্বশরীরে তার কে যেন অগ্নিসংযোগ করিতেছে। বেয়াড অনুসন্ধান করিতে লাগিলেন কি উপায়ে সাধারণ আলোকে এই কাৰ্য্য সম্পন্ন হইতে পারে। নানা প্ৰকার পরীক্ষার পর তিনি কৃতকাৰ্য্য হন। এই পরীক্ষার সময়ে তার মনে হয় তিনি ত মাত্র তার নিজের LLBB DDBB BBDBLDDD DDS DDBD DDDBDB DDDDD চক্ষু, তাহার দেখিবার সাহায্য করতেছে। এই বৈদ্যুতিক চক্ষু লইয়া তিনি মানব চক্ষুর অগোচর যে সব রশ্মি আছে তাহা পরীক্ষা করিতে লাগিলেন। প্ৰথমে আণ্টা-ভায়োGld ( Ultra-Violet ) .sg eDI! Eige Ecgs, s*T এ রশ্মি তার কাজে আসিল না, এ রশ্মি অত্যন্ত প্রখর এবং বেশী দূরে প্রতিফলিত করিতে পারা যায় না। তখন তিনি বেয়ার্ড (দক্ষিণে ) ও তাহার টেলিভিসন যন্ত্র ֆՎ9Գ