পাতা:বিভূতি রচনাবলী (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/১৬৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


X8 o বিভূতি-রচনাবলী আবহূলের কাওকারখানা আর আপনি তাকে চেনেন নি দু-তিনমাসেও ? রাধে কৃষ্ট ! বেটা জুয়াচোরের ধাড়ী, হার্ডওয়ারের বাজারে সবাই চিনে ফেলেছে, এখানে আর সুবিধে হয় না, তাই গিয়ে আজকাল জুটেছে মেশিনারির বাজারে। কোনও দোকানে ভো আপনার একবার জিগ্যেস করাও উচিত ছিল। হার্ডওয়ারের দালালি করা কি আপনার মত ভালমানুষের কাজ মশাই ? আপনার অল্প বয়স, অল্প কাজ কিছু দেখে নিন গে। এখানে কথা বেচে খেতে হবে, সে আপনার কর্ম নয়, তবুও ভাল যে আটটা টাকার ওপর দিয়ে গিয়েছে— আট টাকা বিশ্বাস মহাশয়ের কাছে যতই তুচ্ছ হউক অপুর কাছে তাহ নয়। ব্যাপার বুঝিয়া চোখে অন্ধকার দেখিল—গোটা মাসের ছেলে পড়ানোর দরুণ সব টাকাটাই যে সে তুলিয়া দিয়াছে আবদুলের হাতে। এখন সারা মাস চলিবে কিসে! বাড়ি ভাড়ার দেন, গত মাসের শেষে বন্ধুর কাছে ধার—এ সবের উপায় ? দিশহারা ভাবে পথ চলিতে চলিতে সে ক্লাইভ স্ট্রীটে শেয়ার মার্কেটের সামনে আসিয়া পড়িল। দালাল ও ক্রেতাদের চীৎকার, মাড়োয়ারীদের ভিড় ও ঠেলাঠেলি, ধর্নিক্রফট ছ’ আনা, থনিক্রফট ছ’ আনা, নাগরমল সাড়ে পাচ আনা—বেজায় ভিড়, বেজায় হৈ-চৈ, লালদীঘির পাশ কাটাইরা লাটসাহেবের বাড়ির সন্মুখ দিয়া সে একেবারে গড়ের মাঠের মধ্যে কেল্লার দক্ষিণে একটা নির্জন স্থানে একটা বড় বাদাম গাছের ছায়ায় আসিয়া বসিল । অজই সকালে বাড়িওয়াল একবার তাগাদা দিয়াছে, কাপড় একেবারে নাই, না কুলাইলেও ছেলে পড়ানোর টাকা হইতে কাপড় কিনিবে ঠিক করিয়াছিল, রুমমেট ভো নিত্য ধারের জন্ত তাগাদ করিতেছে। আবদুল শেষকালে এভাবে ঠকাইল তাহাকে ? চোথে তাহার জল আসিয়া পড়িল—দুঃখদিনের সাখী বলিয়া কত বিশ্বাস যে করিভ সে আবদুলকে ! অনেকক্ষণ সে বসিয়া রহিল। বী বা করিতেছে দুপুর, বেলা দেড়টা আন্দাজ। কেহ কোন দিকে নাই, আকাশ মেঘমুক্ত, দূরপ্রসারী নীল আকাশের গায়ে কালো বিন্ধুর মত চিল উড়িয়া চলিয়াছে দূর হইতে দূরে, সেই ছেলেবেলাকার মত—ছোট হইতে হইতে ক্রমে মিলাইয়া চলিয়াছে। একজন ঘেসেড়া বর্ষার লম্বা লম্ব ঘাস কাটিতেছে। ছোট একটি খোটাদের মেয়ে ঝুড়িতে খুঁটে ফুড়াইতেছে। ..দূরে খিদিরপুরের ট্রাম যাইতেছে"গঙ্গার দিকে বড় একটা छांहांटजब्र cठां७-८शांटüग्नि ¢बउांzब्रब्र यांखग-4क्.श्रृंहे.“उिन...कांब्र“श्रांकांनं क् िघन नैौण ...এই তো চারিধারের মুক্ত সৌন্দর্য, এই কম্পমান প্রাবণ দুপুরের খররৌদ্র...বিদ্যুৎ স্বৰ্ষ" রাত্রির তারা...প্রেম-মা-দিদি...অনিল মাথার উপরে নিঃসীম নীল আকাশ.. মৃত্যুপারের দেশ.চিররাত্রির অন্ধকারে যেখানে গাই গাই রবে ধূমকেতুর দল আগুনের পুচ্ছ জুলাইয় উড়িয়া চলে—এছ ছোটে, চক্ৰন্থর্য লাটিমের মত আপনার বেগে আপনি ঘুরিয়া বেড়ায় • তুহিনীভদ বোমপথে দূরে দূরে দেবলোকের মেরু-পর্বতের ফাকে ফঁাকে তাহারা মিটমিট করে—এই পরিপূর্ণ মহিমার মধ্যে জন্ম লইয়া আটট টাকা...তুচ্ছ আট টাকা.এ কোন বিচিত্র জগৎ “কিসের খর্নিক্রফট, স্নার নাগরমল ?