পাতা:বিভূতি রচনাবলী (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৫১১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অভিযাত্রিক 8b'6. আমরা সবাই অবাক, এ কি, এত বড় জাগ-এন্ত মোটরের ভিড়গিনি জগনে। কখনও তো নামও শুনিনি। দু-চারজন লোককে ডেকে জিজ্ঞেস করে জানা গেল এন্ড মোটরের ভিড়ের কারণ, সেরাইকেলার রাজার ছেলের বিয়ে—সিনি জংশন থেকে সেরাইকেল মাইল পনেরো-কুড়ি পথ—এসব মোটর বরযাত্রী নিয়ে আসচে সেরাইকেল থেকে। আমরা চ খেয়ে ট্রেনে উঠে বসলুম। ট্রেন ছেড়ে দিল । আমার বন্ধুর সব জানালার কাছে বসেচে। প্রমোদবাবু কেবল চেচিয়ে বলেন—ও বিভূতিবাবু, এমন চমৎকার একটা পাহাড় গেল দেখতে পেলেন না ! ওদিকে কিরণ চেচিয়ে ওঠে-কি মুন্দর নদী একটা ! দেখুন দেখুন—এই জানলায় আমুন-চট করে— বেঙ্গল নাগপুর রেলপথের গৈলকেরা স্টেশনে থেকে মনোহরপুর পর্যন্ত দু-ধারের অরণ্যপর্বত্তের দৃপ্ত অতুলনীয়। গৈলকের স্টেশনে এসে পাহাড় জঙ্গলের দৃপ্ত দেখে প্রমোদবাবু তে৷ একেবারে নির্বাক ! পরিমলবাবু স্টেশনের প্ল্যাটফর্ম থেকে সামনের পাহাড়ের একটা ফটাে তুলে নিলেন। তারপর রেলপথের দুধারেই অপূর্ব দৃশু—জানাল থেকে চোখ ফেরাতে পারিনে। গৈলকের স্টেশনে বড় বড় পেঁপে গোটাকতক কেন হয়েছিল—কিরণ সেগুলো ছাড়িয়ে ভালো করে কেটে দিলে। বসন্তকাল, বনে বনে রক্তপলাশের সমারোহ, সারেঙ্গ টানেলের মুখে ধাতুপ ফুলের বন, শালবনে কচি সবুজপত্রের সম্ভার, প্রচুর স্বর্যালোক, বনের মাথার ওপরে নীল আকাশ, মাঝে মাঝে বনের মধ্যে দিয়ে পার্বত্য নদী শীর্ণধারায় সর্পিল গতিতে বয়ে চলেচে, কোথাও একটা বড় নির্জন পথ রেললাইনের দিক থেকে গভীর বনের মধ্যে অদৃপ্ত হয়ে গেল, কোথাও প্রকাও কোয়ার্তজ পাথরের পাহাড়টা বনের মধ্যে মাথা তুলে দাড়িয়ে, কোথাও একটা অদ্ভুতদৰ্শন বিশাল শিলাখণ্ড বনের মধ্যে পড়ে আছে—প্রমোদবাবু আর কিরণের খুশি দেখে কে । পরিমল বেচারী তো ফটাে নেবার জন্তে ছটফট করচে, আর কেবল মুখে বলচে, ও, এইখানে যদি ট্রেনটা একটু দাড়াতো ! ওখানে যদি ট্রেন একটু দাড়াতো! বেলা দুটাের সময় ঝাসর্পগুড স্টেশনে গাড়ি দাড়ালো। এখানে আমরা চ খেয়ে নিলুম। প্রমোদবাবু টাইমটেবল দেখে বললেন–বিছানা বেঁধে ফেলুন সবাই, আর দুটাে স্টেশন পরেই বেলপাহাড় । ওখানেই নামতে হবে । ইব বলে একটা ছোট স্টেশন ঘন বনের মধ্যে। স্থানটায় বড় চমৎকার শোভা । স্টেশনের কাছেই একটা নদী, তার দুপারে ঘন বন, বনের মধ্যে রঙ ধাতুপ ফুলের মেলা। " একটা লোককে জিজ্ঞেস করে জানা গেল নদীর নাম ৱাৰী বাবানী। বেলপাহাড় স্টেশনে নামবার আগে দেখি ছোট্ট স্টেশনের প্লাটফর্মে অনেকগুলি লোক