পাতা:বিশ্বকোষ ঊনবিংশ খণ্ড.djvu/৬৮৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শ্ৰণীকরণ গোরোচনা, চিতাভষ্ম, মনুষ্যতৈল ও স্বীয় শুক্র এই সকল দ্রব্য একত্র পেষণ করিয়া যে স্ত্রীকে প্রদান করা যায়, সেই স্ত্রী তৎক্ষণাৎ বশীভূত হয়। চিতাভষ্ম, বসা,কুড়, তগরকাষ্ঠ ও কুকুম এই সকল দ্রব্য সমপৰিমাণে লইয়া করিবে। এই টুর্ণমে স্ত্রীর মন্তকে ও পুরুষের পদে নিক্ষেপ করা যায়, সেই স্ত্রী ও পুরুষ বশীভূত হইয়া থাকে। ধুন্ত,রবীজ, ছোলঙ্গ লেবুর বীজ, জিহামল, দন্তমল, চক্ষুর মল, কর্ণমল ও নাসামল একত্র করিয়া যে স্ত্রীকে ভক্ষণ করাইবে সেই স্ত্রী বশীভূত হয়। ৩•ট ছোলা, ১৬টি ইশ্রযব, গোদস্ত ও নরদস্তু তৈলের সহিত পেষণ করিয়া ললাটে তিলক করিবে, ইহাতে তিলোত্তমাও বশীভূত হয়। সোহাগ, যষ্টিমধু গোরোচনা, চিতাভষ্ম ও কাকজিহা, এই সকল দ্রব্য সমপরিমাণে লইয়া একত্র মধুর সহিত তিলক করিলে স্ত্রীগণ বশীভূত হয়। পু্যানক্ষত্রে কৃষ্ণধুস্তরের মূল, ভরণীলক্ষত্রে ফল, বিশাখানক্ষত্রে পত্র, মূলানক্ষত্রে মূল উদ্ধত করিয়া একত্র পেষণ করিয়া তাহার সহিত কুঙ্কুম, কপূর ও গোরোচনা মিশ্রিত করিয়া তিলক করিলে স্ত্রী বশীভূত হয়। কাকজঙ্ঘা, বচ, কুড়, বিপ্রপদ, কুঙ্কুম ও স্বীয় রক্ত একত্র করিয়া কপালে তিলক করিলে স্ত্রী বশীভূত হয়। কাকজঙ্ঘা, বচ, কুড়, শুক্র ও শোণিত, এই সকল একত্র করিয়া যে স্ত্রীকে খাওয়াইযে, সেই স্ত্রী যাবজ্জীবন তাহার বশীভূত হইবে। চটক পক্ষীর মস্তক, শ্বেত আকন্দের মূল, মঞ্জিষ্ঠ, ও খদির এই সকল যাহাকে পান করাইবে, সেই স্ত্রী বশীভূত হয়। সপের খোলস, দাড়িম্বকাষ্ঠ ও এরওতৈল, এ সকল সমপরিমাণে লইয়া ধূপ প্রদান করিলে সেই স্ত্রী বশীভূত হয়। অশ্বিনীনক্ষত্রে পলাশবৃক্ষের মূল সংগ্ৰহ করিয়া করে বন্ধন তচ্চুর্ণং তিলকে পানে ভক্ষণে গন্ধপুষ্পরেী:। ক্ষিপেৰ মস্তকে যন্ত সবস্তে জীয়তেইচিরাং । भाश्नt अाश भूकूरु७ कूकूभाष*5ल-९ ।। গোরোচনা সমং পিয়ং ভক্ষে পানে জগদ্ধ"। স্তিরে বা পুরুষে বাপি সহস্ৰ জপনান্তবেৎ। ও ইং স্ট্রং হুঃ হ্ম: হে: ফটু নমঃ । কৃতোপবাসে গৃহীয়াং সমুলাঞ্চেজধারণীং । ७ख*ाडिमूथtनव दू5प्रउझनूषण ॥ .তংবদন্ত্রিকটু তুল্যমাত্র পেংে। ছায়াশুদ্ধাং এটং কুর্থাৎ স বট রক্তচন্দনং। नृहे.ष चबूजी: निषाः स्वश्। “हे अणषत्रन् । न॥१ौ दिनङ्गश् छ्रूण]* निष्ठाम् । जtण प्रहे। विप्नभाव ३खर बल डएवष*ः ॥ ३ठानि । ( সিদ্ধনাগার্জন কক্ষপুট ) [ ۹مطن ] বশীকরণ করিলে নায়িক বশীভূত হয়। যজ্ঞোত্বম্বরের মূল, মৃগশিরানক্ষত্রে আহরণ করিয়া হস্তে বন্ধন করিয়া যাহার অঙ্গে স্পর্শ করাইবে, সেই কামিনী বশীভূত হয়। ধনিষ্ঠানক্ষত্রে শিরীষবৃক্ষের মূল গ্রহণ এবং স্বাতীনক্ষত্রে ধাতকীমূল আনয়ন করিয়া করে ধারণ করিলে নারীগণ বশীভূত হইয়া থাকে। রেবতীনক্ষত্রে বটের কুড়ি আহরণ করিয়া হস্তে বন্ধন করিলে সকলকে বশীভূত করিতে পারে এবং মূলানক্ষত্রে বদরী মূল উত্তোলন করিয়া যে স্ত্রীকে ভোজন করাইবে, সেই স্ত্রী বশীভূত হইবে। স্বর্ণপাত্রে কুনাবৃক্ষের মূল, ঘঁষণ করিয়া যে স্ত্রীর পৃষ্ঠদেশে দেওয়া যায়, সেই স্ত্রী নিশ্চয়ই বশীভূত হয়। অগ্রহায়ণ মাসের পূর্ণিমা তিথিতে অপমার্গের মূল উত্তোলন করিয়া যে স্ত্রীকে খাওয়াইবে, সেই স্ত্রী বশীভূত হইবে । শ্বেত গুঞ্জার মূল এবং পঞ্চমল, জিহবা, দন্ত, চক্ষু:, কর্ণ ও নাসামল এই সকল একত্র করিয়া চগুমন্ত্র পাঠপূৰ্ব্বক যে স্ত্রীকে ভোজন করান যায়, সেই বশীভূত হয়। এই যে সমস্ত স্ত্রীবণীকরণ লিখিত হইল, ইহার প্রত্যেকই চগুমন্ত্র জপ ও পাঠ করিয়া করিতে হয়। চণ্ডমন্ত্র ভিন্ন উহ। নিষ্ফল হয়। প্রাতঃকালে দন্ত প্রক্ষালন করিয়া যে স্ত্রীর নাম উল্লেখ ও ‘ওঁ নমঃ ক্ষিপ্ৰং কামিনী অমুকী বশমানয় ছং ফট্‌ স্বাহা’ এই মন্ত্রে ৭বার অভিমঞ্জিত করিয়া ৭ গধুষ জলপান করিবে, সেই স্ত্রী বশীভূত হইয়া থাকে। নাগকেশর পুষ্প, প্রিয়ঙ্গু, তগরকাষ্ঠ, পদ্মকেশর, বচ, জুটমাংসী এই সকল দ্রব্য একত্র চুর্ণ করিয়া যে ব্যক্তি ‘ওঁ মূলি মূল মহামুলি রক্ষ রক্ষ সৰ্ব্বাসাং ক্ষেত্রয়েভ্যে পরেভ্যঃ স্বাহ৷ এইম{ পাঠ করিয়। উক্ত চূর্ণ দ্বার স্বীয় শরীরে ধূপ প্রদান করিপে, সেই ব্যক্তিকে কামদেবের দ্যায় জ্ঞান করিয়া স্ত্রীগণ তাহার বগু হইবে । স্বীয় জিহ্বামল, নাসামল ও কর্ণমল এই সকল একত্র কবিয ‘ওঁ নমঃ সবায়ৈ নমঃ সবাণ্যৈ চ অমুকীং মে বশমানয় স্বাহা’ এই মন্ত্র পাঠ করিয়া মুরার সহিত যে স্ত্রীকে ভোজন কবান যায়, সেই স্ত্রী নিশ্চয় বশীভূত হইয়া থাকে। ‘ওঁ নমঃ বাচাট পথ পথ ছিটি-দ্রাবহি স্বাহা’ এই মস্ত্রে ৭বার অভিমন্ত্রিত করিয়া বেড়েলার মূল বা ফল আহরণপূৰ্ব্বক যে স্ত্রীকে দেওয়া যায়, সেছ স্ত্রী অবশু বীভূত হয়। অপামার্গ বৃক্ষের মধ্যভাগের চতুরঙ্গুল পরিমিত কাষ্ঠ ও দ্রাবিণি স্বাহ ও হর্মিলে স্বাহা’ এই মন্ত্রে ৭বার অভিমন্ত্রণ করিয়া বেশ্বাগৃহে নিক্ষেপ করিলে সেই বেখা বশীভূত হয়। পেচকের চক্ষু ও মাংস, রক্তচন্দন, গোরোচন, কুঙ্কুম এবং