পাতা:বিশ্বকোষ চতুর্দশ খণ্ড.djvu/১০৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মনস্ অধিক নির্ভর ; কিন্তু সাংখ্যাচাৰ্য্যদিগের নির্ভুর আগুবাক্য, যুক্তি তুহার সাহায্যকারী মাত্র। প্রধান আপ্তবাক্য বেদ ও বলিয়াছেন, মন সাবয়ব, সেইজন্ত অনেকেই মনের সাবয়বত্ব স্বীকার করেন । ছান্দোগ্যোপনিষদের ষষ্ঠাধ্যায়ে এ সম্বন্ধে একটী আখ্যা ঞ্জিকা অাছে, তাহা এইরূপ। উদালক শ্বেতকেতুকে ব্রহ্মবিদু করিবার মানমে প্রতিদিন সোদাহরণ প্রশ্নের অবতারণা করিতেন। একদিন বলিলেন, “ন নাপ্ত কশ্চনামতমবিজ্ঞাতমুদাহরিযাতি” বংস ! আমাদের বংশের কোন ব্যক্তি অদ্ভূত ও অবিজ্ঞাত পদার্থের উঘোষণ করেন নাই। অর্থাৎ সকলেই সৰ্ব্বজ্ঞ ছিলেন। তাছাতে শ্বেতকেতু বলেন ইহা কি প্রকারে সম্ভৱ হয়। শ্বেতকেতুর এই প্রশ্নের প্রত্যুত্তরে উদ্ধালক বাহভূতের রহস্য উপদেশ করির পশ্চাৎ অধ্যায়ভূতের তত্ব কথনকালে বলিলেন, “অল্পময়ং হি সেীমা ! মন আপোময়ঃ প্রাণ, তেজোময়ী বাকু, হে সৌম্য । শ্বেতকেতো ! মন অগ্নময় অর্থাৎ খাদ্যদ্রব্যের পরিণামবিশেষ । প্রাণ জলময়, বাকু তেজোময়ী। শ্বেতকেতু এই সকল কথার মৰ্ম্ম বুঝিতে ন পারিয়া বলিলেন, "ভূয় এব মাং ভগবান বিজ্ঞাপয়ভু’ আবার বলুন, আমি ভাল বুঝিতে পারিলাম না। তখন উদালক শ্বেতকেতুর বোধের জন্ত বলিতে লাগিলেন, পৃথিবীধাতু, অপ,ধাতু ও তেজোধাতু। ধাতুর নামান্তর ভূত এবং পৃথিবীধাতুর নামান্তর অন্ন। আকাশ, বায়ু ও ঐ ত্রিবিধ ভূ ত পরম্পর অসুবিদ্ধ হইয়া সৰ্ব্বত্র বিরাজ করিতেছে। পুৰ্ব্বোত্ত ত্রি-ধাতু বা পঞ্চধাতু আত্মা ভিন্ন সমস্ত পদার্থের উপদান ও পোষক। বহিঃস্থ অ্যাদি ধাতু আধ্যাত্মিক ধাতুতে য:যুক্ত বা অনুপ্রবিষ্ট হইয়া সে সকলের স্থিতি ও পুষ্টিসাধন করিতেছে। তাহার প্রণালী এইরূপ-- ভূক্তায় জঠরাগ্নিতে পরিপাক হইয় প্রথমে তিন ভাগে दिङरु इग्न । शाङ्। "ङ्गङभङश्र ( অল্পমল ) তাছ। পুরীষ, যাহা মধ্যম তা হা মাংস, যাহা সুশ্ন তাহ ইন্দ্রিয় ও মন । যেমন দধি মন্থন করিলে তাহার মধ্য হইতে তাহার সার বা স্বক্ষ ধাতু মিশ্রিতভাবে উৎপন্ন হয়, সেইরূপ তেজ, অপ, ও অন্ন এই ভুক্ত ত্ৰিবিধ দ্রব্য জঠরানল ও বায়ু দ্বারা মথিত হইলে তাহীদের সারাংশ উদ্ধে উখিত হয়। পরে তাহ নাড়াপথে শিয়া প্রশিরা দিয়া চালিত হইয়। সেই সেই পদার্থের উৎপত্তি, স্থিতি ও পুষ্টি করিতে থাকে। উদানবায়ু সার উদগত, অপানবায়ু অসার নিঃসারিত এবং ব্যানবায়ু সমুখিতসার সমুদায়কে द्धन-ग्नङ्ॉनि-श्रीकांदब्र *ब्रि*ॉभिङ कब्रिञ्च श्रृंद्रौदद्भद्र नृदर्दनिएक णशैब्रा शीघ्र । ७ऐंबछ दणिब्रॉङ्,ि भन जङ्गभग्न, थां५ खणभग्न 鬱 ] سن۰ لا [ মনস্ ജ७ दकि] dउ८छोप्लग्न । हेश्। योङाक्न कब्रिाज्र श्रेष्ण कि अङ्ग, কি জল, কি তেজ কিছুই উপযোগ করিও না, ষোড়শ দিনে আমার নিকট আসিও । শ্বেতকেতু পঞ্চদশ দিন অনাহারের পর পিতার নিকট উপস্থিত হইলেন। অনস্তর পিত কহিলেন, ‘খুচঃ সৌম্য ! যজুৰি সামানি চুধেসি’ হে সৌম্য ! তোমার খৰু যজুঃ ও সাম অধ্যয়ন করা হইয়াছে। শ্বেতকেতু বললেন, ‘ন চৈমাঃ প্রতিভাস্তি ভোঃ হে পিতঃ ! আজ আমার কিছুই স্বরণ হইতেছে না। তখন ঋষি কহিলেম, মেমন কাঠাভাবে মহংপরিমাণ অগ্নি ও নিবিয়া যায়, আবার খস্তোতপরিমিত জলদঙ্গারে কাঠযোগ করিলে তাছা হইতে মুমছা প্রজলন উপস্থিত হয়। সেইরূপ আহারাভাবে তোমার ইক্রিয় ও মম ক্ষীণ হইয়া, নিৰ্ব্বাণপ্রায় হইয়াছে, কিছু উপযোগকর, তাহ। হইলে পুনঃ প্ৰজলিত হইবে । তখন সমুদয় আবার তোমার স্মরণপথে আসিবে। ঋষি উন্দালক এইরূপে আহারের হ্রাসবুদ্ধিতে মনের হ্রাসবৃদ্ধি হওয়া দেখাইয়। সাবপ্লবত্বনিবন্ধন জন্মত্ব অবধারণ করাইয়া ছিলেন। সাংখ্য এই মতের অমুগামী, সুতরাং সাংখ্যমতে মন সাবয়ব ও নশ্বর। নশ্বর হলেও ইহা ক্ষণভঙ্গুর নহে। সাংখ্য বলেন, মন সাক্ষাৎ মূলপ্রকৃতি হইতে উৎপন্ন হইয়৷ প্ৰতিদেহে বিরাজ করিতেছে। আমার আত্মায়, তোমার আত্মীয় ও অন্তের আত্মায় অধস্থান করিতেছেঃ মোক্ষ অথবা মহাপ্রলয় ব্যতীত তাহার বিনাশ নামক বিকারের কাল আসিবে না । কেহ কেহ মনকে আত্মা বলিয়া নির্দেশ করিয়াছেন, অতি সংক্ষেপে তাহাদের মত আলোচনা করিয়া দেখা যাউক । মন যে আত্মা নহে তাহার প্রমাণ কি ? জ্ঞান ও ইচ্ছ। প্রভৃতি যে কিছু চেতন, গুণ, সংকল্প, বিকল্প, অবধারণ প্রভৃতি । চেতন কাৰ্য্য, সমস্তই সমনস্ক পদার্থে দৃষ্ট হয়, অন্যত্র । নছে। ইন্দ্রিয় নিৰ্ব্ব্যাপার হইলে প্রাণ তুষ্টীম্ভাব অবলম্বন করিলেও মন নিবৃত্ত থাকে না, স্বপ্ন, স্মৃতি ও অনুধ্যানাদি কার্য্যে ব্যাপৃত থাকে। মন যদি প্রসুপ্ত বিলীন বা ধ্বস্তু रुग्न, ऊांश श्रण गयूनग्न दTांशांब्र शूखं श्ब्र दांब्र। oहे অস্বয়ব্যতিরেক প্রমাণে স্পষ্ট প্রতীতি হইবে, মনই আত্মা। আজু তাতিরিক্ত নহে । আলোক যেমন আপনার সত্তাদুৰ্ত্তি বজায় রাখিয়া অম্ভের সত্তাক্ষপ্তি উপলব্ধি করা, তেমনি মনও আপনার সত্তাক্ষত্তি স্থির স্থাৰিয়া ইন্সিয়দৃষ্ট বাহুপদীর্থের সত্তাত্তি অবধারণ করে। অসংখ্যশক্তিসম্পন্ন মন বিশেষ বিশেষ শক্তি বা গুণ অনুসারে বিশেষ বিশেষ স্বাধ্য। প্রাপ্ত হইয়া থাকে। সংকল্পৰিকল্প-শক্তি লই। মন, কৰ্ত্তী