পাতা:বিশ্বকোষ চতুর্দশ খণ্ড.djvu/৫০৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মাইকেল মধুসূদন দত্ত


یہ--سم۔

গৌরবে বিস্মিত হইবে । তিনি ৰায়ণের জীবনচরিত পাঠ করিয়া গেীরদাস বাবুকে পত্রে লিখিয়াছিলেন – “I am reading Tom Moor's life of my favorite Byron–A splendid book upon my word. Oh! How should I like to see you write my life, if I happen to be a great poet, which, I am almost sure, I should be if I can go to England.” বালক মধুস্থদনের মনে ইংলগু-গমনের ঘে উৎকট জাকাঙ্ক্ষা জন্মিয়ছিল, তাহ তাহার এই পত্রে, তমলুক দর্শনকালীন গেীরদাস বাবুকে লিখিত পত্রে এবং ১৮৪২ খৃষ্টাব্দের “লিটারার গ্রীনার নামক পত্রিকায় লিপিবদ্ধ কল্পিয়া যান। নিয়ে তাহার সেই হৃদয়-ভাবষ্যঞ্জক কবিতা উদ্ভূত করা গেল ;– “ot like a sad bird Isigh To leave this land, though mine own land it be; Its green robed meads,-gay flowers and cloudless sky Though passing fair, have but few charms for me. For I have dreamed of climes moře bright and free Where virtue dwells and heaven-born liberty Makes e'en the lowest happy;-where the eye Doth sicken uot to see man bend the knee To sordid interest —climes where science thrives And genius doth receive her guerdon meet ; Where man in all his truest glory lives And nature's face is exquisitely sweet : For those fair climes I heave the impatient sigh, There let uue live and there let me die." ইহার এক বৎসর পূৰ্ব্বে লিখিত "Extemporary song” নামক কবিতায়ও তিনি ইংলও-গমনের দুর্দমনীয় বাসনা-প্রকাশ করিয়াছিলেন। তাছার বিশ্বাস ছিল, ইংলণ্ডে গমন করিতে ন পারিলে তাহার কবিত্ব-শক্তি পূর্ণরূপে মূৰ্ত্তিপ্রাপ্ত হইবে না কিন্তু সে অবকাশ আসিবার পূর্বেই তিনি মেঘনাদ, বীরাঙ্গণ, ব্ৰজাঙ্গন। প্রভৃতি উৎকৃষ্ট কাব্যগুলি রচনা করিয়া বঙ্গসাহিত্যের সৰ্ব্বোচ্চ সিংহাসন অধিকার করিয়াছিলেন। যুরোপীয় আচার ব্যবহার, হাবভাব, সাহিত্য ও সমাজের বিশেষ অমুকরণপ্রিয় হইলেও তিনি একবারে স্ব-সমাজের ও স্বদেশের প্রতি অম্বুরাগলুপ্ত হয়েন নাই। তাহার লিখিত ;—“Written at the Hiudu College by a young native student,” নামক কবিতা— • “Oh how my heart exulteth while I see These future flow’rs to deck my country's brow” —পাঠ করিলে তাহ সম্যক উপলব্ধি হয় । এই অষ্টাদশ মাইকেল মধুসূদন দত্ত - o বর্ষ ধাপেই তিনি ইংলণ্ডের সুবিখ্যাত Bentley's Miscellany qqe Blackwood's Magazine roofs ofton of st প্রেরণ করিতেন । হিন্দু-কলেজে শিক্ষা-কালে মধুসূদন উচ্ছ খল, অসংঘতেক্রিয়, অমিতব্যয়ী, বিলাসী এবং ধৰ্ম্মনীতি-সম্বন্ধে সম্পূর্ণ উচ্চাসীন ছিলেন। পক্ষাস্তরে অধ্যয়নশীলতা, কাব্যামুরাগ, প্রেমপিপাসা, পরদুঃখকাতরতা, উদ্যেশুসাধনে দৃঢ়ত প্রভৃতি সদগুণ তাহাকে সমলস্থত করিয়াছিল। এতদ্ভিন্ন নিজের শক্তি ও সামর্থ্য লম্বন্ধে অটলবিশ্বাস র্তাহীকে কখনও লক্ষ্যভ্রষ্ট করিতে পারে নাই। কিন্তু অকস্মাৎ এই সময় হইতে কোন অভাবনীয় ঘটনাস্রোত তাহার জীবনপ্রবাহকে অন্তু পথে লইয়া গেল । ঐ ঘটনাটা তাহার খৃষ্ট-ধৰ্ম্ম গ্রহণ ভিন্ন আর কিছুই নহে। কেন মধুসূদন ধৰ্ম্মান্তর অবলম্বন করিলেন, তদ্বিযয়ে কোন প্রকৃত বিবরণ পাওয়া যায় না। হিন্দু-কলেজে অধ্যয়নকালে তিনি হিউম, টমাস পেন, থিওডোর পার্কার প্রভৃতির গ্রন্থ সাদরে পাঠ করিতেন । সেই সময়ে সহাধ্যায়ীদিগের মত তিনিও সকল মতই উপেক্ষা করিতেন। এতদ্ব্যতীত ডিরোজিও, রিচাডসন, ডেভিড হেয়ার প্রভৃতিরও ছাত্রবৃন্দের উপর তীক্ষ দৃষ্টি ছিল। এরূপ অবস্থায় হিন্দুকলেজের শিক্ষা যে মধুসূদনের ধৰ্ম্ম-মত পরিবর্তনের অমুকুল হইয়াছিল, তাহ কিছুতেই অনুমান করা যায় না। শুনা যায়, এই সময়ে তাহার পিতামাতা স্বদেশীয় এক জমিদার-কস্তার সহিত পুত্রের বিবাহ সম্বন্ধ স্থির করেন, বিবাহ করিলে তাহার ইংলওগমনের ব্যাঘাত ঘটিৰে ভাবিয়। তিনি বিবাহে অসন্মতি প্রকাশ করিয়াছিলেন। কারণ কন্যাট আদে তাহার মনোমত ছিল না। সে কথা তিনি তাহার এক পিতৃব্য-পুত্রকে জানাইয়াছিলেন ;–“বাবা এক কালাপাহাড়ের সঙ্গে আমার বিবাহ স্থির করিয়াছেন, কিন্তু আমি কিছুতেই বিবাহ করিব না। আমি এমন করিব, যে সেজন্ত বাবাকে চিরকাল দুঃখ করিতে হইৰে * পিতামাতাকে ইহাঙেও বিবাহ দিতে কৃতনিশ্চয় দেখিয়৷ তিনি মনের আবেগে গেীরদাসবাবুকে যে পত্র লিখেন,তাহাতে তাহার অন্তনিহিত ভাবগুলি প্রস্ফুটিত হইয়াছে। তিনি fins tattox,−"My betrothed is the daughter of a rich zemindar;-poor girl I What a deal of misery is in store for her in the ever inexplorable womb of Futurity i zittiferwin K: tax instan উল্লেখ করিয়াই তিনি অন্ত স্থলে আপনার বিশ্বৰিজয়িনী