পাতা:বিশ্বকোষ ত্রয়োদশ খণ্ড.djvu/৯৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বুলবুল বোস্ত [ ৯৭ ডানার পক্ষাগ্র সমুদায় ঈষৎ পীতবর্ণবিশিষ্ট ও গলদেশের বর্ণ শ্বেত হয়, তাহারা পুং ; আর যে সকল শাবকের গলদেশ শ্বেতাভ এবং পালকাগ্র সকল পীত নহে, তাহার স্ত্রী। এই পক্ষী সমমগুলবাসী ; ইউরোপ ও এসিয়া থওদ্বয়ের অনেকাংশেই এবং আফ্ৰিকাখণ্ডে কেবল নীলনদের তীরবর্তী দেশ সকলে এই পক্ষী পাওয়া যায়। ইহার এক একবারে পাঁচ বা ছয়ট করিয়া হরিতাভ কপিশ বর্ণের ছোট ছোট অণ্ড প্রসব করে এবং পনের দিবস ক্রমাগত তদুপরি উপবেশন করিয়া ( তা দিয়া ) তাহ ফুটাইয় থাকে। বুলবুলবোস্ত প্রায়ষ্ট মৃত্তিক হইতে অল্প উচ্চে এবং কখন কখন বা দীর্ঘ তৃণাবুত মৃত্তিকায় নীড় নিৰ্ম্মাণ করিয়া শাবকোৎপাদন করে । ইহাদিগকে শাবকাবস্থাতেই আনিয়া প্রতিপালন করা কর্তব্য। তাহ হইলে ইহারা পালকের অত্যন্ত বশীভূত হয় এবং প্রৌঢ়াবস্থায় নির্ভয়চিত্তে গান করিয়া থাকে। ইহারা পালকের এরূপ বশীভূত হয় এবং তাছাকে এত ভালবাসে যে, কঙ্কু কখন তাহার বিরহে জীবন পর্য্যন্ত বিসর্জন করিয়া থাকে। এই পক্ষিগণ অধিকাংশই কীট ও পতঙ্গভোজী ; ইহার বন্ত ফলাদিও খাইয়া থাকে। যুরোপের কোন কোন প্রদেশে বুলবুলবোস্তা ধরিবার বিশেষ নিয়ম আছে। তথায় যদি কেহ প্রৌঢ়াবস্থার পার্থী ধরে, তবে তাছাকে রাজদ্বারে দওনীয় হইতে হয়। সেখানে বুলবুলবোস্তার শাবক ধরিয়া বিক্রয়াদি করাই সাধারণ বিধি । পোযাপার্থীর পিঞ্জরেই বাস। এই অবস্থায় কেহ জোড়া জোড়া এবং কেহ বা এক একট পার্থী এক একটা পিঞ্জর মধ্যে রক্ষা করিয়া থাকেন । পিঞ্জরট দীৰ্ঘে ১২ হইতে ১৮ ইঞ্চি ও প্রস্থে ৬ হইতে,১২"ইঞ্চি এবং উচ্চে একফুট পৰ্য্যন্ত হইলেই প্রচুর হয়। বেষ্টিন ( Mr. Bastin ) সাহেব | বলেন, ঐ পিঞ্জরট হরিৎবর্ণে রঞ্জিত ও উহার সমস্ত উপরিভ্যু ( ছাদ ) একথও হরিদ্বর্ণ বসনে মণ্ডিত করা উচিত। যদি কেহ এই মতের পক্ষপাতী হইয়া বুলবুলবোস্তার পিঞ্জর হরিৎবর্ণে রঞ্জিত করেন, তাহা হইলে পার্থীকে পিঞ্জর মধ্যে প্রৰেশ করাইবার পূৰ্ব্বে তিনি পিঞ্জরট উত্তমরূপে শুদ্ধ ও দুৰ্গন্ধপৃষ্ঠ করিয়া লইবেন । পিঙ্গর মধ্যে তিনটা ডাড় প্রস্তুত করিয়া দিবেন, উস্থার দুইটা পিঞ্জরের তলার নিকট ও অপরটা তাহা হইতে কিছু উপরে রাখিবেন । পক্ষীগণের কোমল পদ নিরাপদ রাখিবার জন্ত উক্ত ডাড়ক্রয়ও হরিদ্বর্ণ বসনে ( মকমল প্রভৃতিদ্বারা ) মণ্ডিত করিয়া দেওয়া কৰ্ত্তব্য । পিঞ্জর মধ্যে একটা জলপাত্র এরূপ ভাবে স্থাপন করিবে যে, পার্থী ইচ্ছামত অনায়ালে উহাতে অবতরণ করিয়া দান করিতে পারে। পিঙ্গরের নিয়ভাগ সতত জলে জার্ক্স না হয়, এই নিমিত্ত ইহার

    • . . .

> * ] বুলবুল বোস্ত তলদেশে এক’ত ব্ৰটীং কাগজ অথবা একখণ্ড অয়েলক্লথ বিষ্কৃত করিয়া রাখিবে এবং উছ পুনঃ পরিবর্তন করিয়া পিঙ্গরের ময়লাদি বিদূরিত করবে। পরীক্ষাদ্বারা এরূপ দেখা গিয়াছে যে, যে সকল বুলবুলবোস্ত। উপরোক্তরূপ পরিষ্কৃত পিঞ্জর মধ্যে যত্নসহকারে রক্ষিত হয়, তাহার উত্তম গান করিয়া থাকে । নির্জন কিংবা বিরক্তিজনক স্থান ইছাদের নিতান্তই অপ্রিয় ; এইরূপ স্থানে রক্ষিত হইলে ইহার তেমন প্রফুল্লচিত্তে গান করে না। গান করার জন্য কখন কখন ছায়াবিশিষ্ট এবং কখন বা রৌদ্রময় স্থান নিৰ্ব্বাচন করিয়া তথtয় কতক সময়ের জন্ত পিঞ্জর স্থাপন করিবে। এই পাণীকে সাবধানতা ও মৃদুতার সহিত প্রতিপালন করা কর্তব্য । ইছারা সুশোভিত উদ্যান ও গোলাপাদি সুন্দর মুমিঃ সৌরভযুক্ত কুসুমপ্রিয় এবং কোমল স্বভাববিশিষ্ট। ইহার সচরাচর শরৎ ঋতুর শেষভাগ হইতে বসন্তকাল পর্যাস্থ উচ্চকণ্ঠে সুললিত স্বরে গান করিয়া থাকে। তবে শীতাধিক্যের সময় ইহারী কিছু কম গান করে। এই পাখী সকল আপন মদে আপনি মত্ত এবং আপন স্বর সৌরতে আপনি বিভোর থাকে । গান করিবার সময় ইছারা দিবা অপেক্ষ রাত্রিতে অবিশ্রাস্তু বিবিধপ্রকার স্বরলহরী ঢালিয়া দিয়া কৰ্ণকে পরিতৃপ্ত এবং হৃদয়কে স্বর্গ হইতে স্বর্গাস্তরের রত্নসিংহাসনে অডিষিক্ত করিতে থাকে । এই নিমিত্ত ইংরাজী ভাষায় ইহাদিগকে নাইটইঙ্গেল (Nightingale) অর্থাৎ রাত্রিগায়ক পার্থী বলে । যদি তোমার হৃদর সাহারার বালুকাময় ভূমির স্থায় কেবল নীরস বা পাশবভাবপূর্ণ না হয়, তাহা হইলে তুমি সংসারা হও, কি সংসারবিরাগী যোগী হও, তোমার হৃদয় সততই বুলবুলের সুললিত স্বরে আকৃষ্ট ও মোহিত হইবে । যখন ইহারা সমধিক উত্তেজিত হয়, তখন রাত্রিকালে একমুহূর্তের নিমিত্ত্বও ইহাদের স্বয়-বিরতি অনুভূত হয় না । এই অবস্থায় ইহার কোন সময় নিদ্রা যায়, তাহা নির্ণয় করা সুকঠিন । এই গভীর নিশীথ সময়ে ইহাদের মুদূরব্যাপিনী সুমধুর স্বরলহরী শ্রবণ করিলে চিত্ত মুগ্ধ হইয় ধাঁয়! ইহার এক নিশ্বাসে অনেকক্ষণ গান করিতে পারে। এই পাখী উদ্যান ও কুসুমপ্রিয় বলিয়া সময় সময় কুসুমমুংসিত সুদৃশু উদ্যান মধ্যে পিঙ্গরের আবরণ উন্মুক্ত করিয়া *হাদিগকে রাখা উচিত এবং মধ্যে মধ্যে গ্রন্টত গোলাপাদি মধুর গন্ধযুক্ত পুষ্প ইছাদের পিপ্পর মধ্যে রাখিয়া দেওয়া এবং প্রাতে ও বিকালে অভীষ্ঠ সুস্বরবিশিষ্ট পার্থীর স্বর শ্রবণ করান কর্তব্য। তাছা হইলে ইহার অত্যন্ত প্রফুল্ল হয় ও বিপুল দৰ্ত্তি ও আনন্সের সহিত গান করিয়া থাকে।