পাতা:বিশ্বকোষ দশম খণ্ড.djvu/১৬৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নিরায়ণ [ ১৬৪ ] নিরালি নিরাস (পুং ) নির-অস তাবে ঘs । প্রত্যাখ্যান, নিরাকরণ, ক্ষিপ। "ৰঙ্গানগুনিয়াসত্বে প্রতীতা (সাংখাপ্রবচনভাষা ) ( ত্রি ) ২ নিরাসক । “নিরাসৈয়লগৈঃ শ্রাগুৈস্তপামানৈ স্বকৰ্ম্মভিঃ।” ( ভারত, শান্তি” ২৭ • অ” ) নিরসন (ক্লী) নির-আস উপবেশনে লুট। ১ নিরসন। নির্গতং আসনং যন্মাৎ । (ত্রি ) ২ আসনাভাববিশিষ্ট । আসনরহিত। নিরাস্বাদ (ত্রি) নির্নাস্তি আশ্বাদে যস্য। আস্বাদহীন । নিরাস্বাদ্য (ত্রি ) ১ আস্বাদরহিত । ২ সম্ভোগরহিত। নিরাহাবৎ (ত্রি ) আহ্বানরহিত, প্রার্থনারহিত । নিরাহার (ত্রি) নির্গত জাহারে যস্য। আহারশূন্য, আহার রহিত ।

  • নিয়াহারাশ, যে জীবাঃ পাপে ধৰ্ম্মে লতাশ্চ যে ” (তর্পণমন্ত্র) নিবৃত্ত আহারঃ ‘প্রাদি সমাসঃ' । ২ নিবৃত্ত আহার । “পশ্চাত্তাপে নিরাহারঃ সৰ্ব্বেহী গুদ্ধিহেতবt ” (যাজ্ঞবল্ক্য)

( কী ) ৩ অtহারাভাব। নিরিঙ্গ (ত্রি) নিশ্চল। "যথা দ্বীপে নিবাতস্থে নিরিঙ্গো জলতে পুনঃ ” ( ভারত ১২।১৫৫৮ ) নিরিঙ্গিণী ( স্ত্রী) নি-নিভৃতং জনং ইঙ্গতি প্রাপ্নোতীতি নিয়ইঙ্গ-ইনি। ততো উীপূ। তিরষ্করিণী, পৰ্য্যায়–অবগুষ্ঠিক, পট, যবনিকা । ( ত্রিকা” ) নিরিচ্ছ ( ত্রি) নির্নাস্তি ইচ্ছ। যস্য। ইচ্ছাশূন্য। নিরায়ণ, ziņzpifrs (Destitute of precession ) I সৌরমণ্ডলের ধ্রুবক, কোন নির্দিষ্টস্থান হইতে গণনা করা হয় । এই নির্দিষ্ট স্থানের নাম ‘বাসস্তিক বিষুব-পদ’ । বাসস্তিক বিষুবপদ হইতে ঘুরিয়া পুনরায় এই স্থানে আসিতে স্বৰ্য্যের ৩৬৫ দিন ১৪ ঘট ৩১৯৭২ পল সময় লাগে। এই সময়কে ‘সায়নবৎসর’ ( the tropical year, ) বলে। কিন্তু স্বৰ্য্যসিদ্ধান্তের মতে, বৎসরের পরিমাণ ৩৬৫ দিন ১৫ ঘট ৩১,৫২৩ পল । শেষোক্ত সময়ে স্বৰ্য্য বাসস্তিক বিষুবপদ হইতে গতি আরম্ভ করিয়া পুনৰ্ব্বার এই স্থান অতিক্রমপূর্বক ৪৮ ৬৮৮১ সেকেও বৃত্তখও পরিভ্রমণ করে। সুতরাং হিন্দুজ্যোতিৰ্ব্বিগণের মতে, গতি আরম্ভ স্থান ক্রমশঃ পুৰ্ব্বদিকে সরিয়া আসিতেছে ; এই প্রকারে ইহা ২২ ডিগ্রীরও অধিক সরিয়া আসিয়াছে। gè & gtra •it«{«f ( difference ) •yatç* ( Degrees of Precession) (fx FFT EN এখন পৌরমণ্ডলস্থ পদার্থ সকলের ধ্রুবক গুই প্রকায়ে গণনা করা যাইতে পারে ; যথা—প্রথম বিষুব { Equinox ) হইতে ; দ্বিতীয় হিন্দু জ্যোতিধিদের মতে। প্রথম প্রকারে সৌরমগুলের পদার্থসমূহের ধ্রুবক অয়নাংশবিশিষ্ট, অতএব এই ধ্রুবক সমুদায় ‘সায়ন । কিন্তু দ্বিতীয় প্রকারে ধ্রুবক সকল অল্পনাংশরহিত, সুতরাং তাহার “নিরায়ণ' বলিয়া অভিহিত হইয়া থাকে। নিরালি, এক প্রকার নিম্ন জাতি। বর্তমান সময়ে, আহ্মদনগর, পুণ এবং শোলাপুর এই তিন স্থানে ‘নিরালি’ জাতির বাস দেখা যায়। ইহাদের অপর নাম নীরালি অর্থাৎ নীলরংকারী। এই তিন জায়গার নিরালিদের আচার ব্যবহার, রীতিনীতি ইত্যাদি সম্বন্ধে অনেক সাদৃশু আছে বটে, কিন্তু প্রত্যেক স্থানের নিরালিদের কার্য্যকলাপ পৃথকৃরূপে বর্ণনা করা গেল । ইতিপূৰ্ব্বে তাহার কোথায় বাস করিত এবং কখনই বা তাহারা এ অঞ্চলে আসিয়াছে, এ সম্বন্ধে কিছুই জানা যায় না। অনেকের বিশ্বাস যে, তাহারা মহারাষ্ট্রের ‘কুনর্বা’ সম্প্রদায়ভুক্ত ; এবং তাহারা নীলরং কাৰ্য্য আরস্ত করায় ইহার নালারিয়া বা নিরালি নাম পাইয়। উক্ত শ্রেণী হইতে, পৃথক্ থাকে আসিয়া নিম্ন হইয়া পড়িয়াছে। ইহাদের পুরুষের নামের পূৰ্ব্বে আপা অর্থাৎ পিত, এবং স্ত্রীলোকের নামের পুৰ্ব্বে বাই এবং আই ( অর্থাৎ মাত ) যোগ করিয়া থাকে । সাধারণতঃ ইছারা ভূমকর, কদরকর ইত্যাদি আছরে নাম ধরিয়া ডাকিয়া থাকে। এক নামধারী দুইজনে কখনও বিবাহ হয় না । ইহাদিগের কুলদেবতার মধ্যে আহ্মদনগরস্থ সোমারির ভৈরব, নিজাম রাজ্যে তুলজাপুরের দেবী, আহ্মদনগরের কালকাদেবী এবং পুণার অন্তর্গত জেজুরীর খাণ্ডোবা প্রসিদ্ধ। পুষ্পচন্নাদি দ্বারা তাহার এই সমস্ত কুলদেবতার পুজা করিয়া থাকে ; ইহা ছাড়া, অন্তান্ত স্থানীয় দেবদেবীর পূজাও করে। ইহারা সমস্ত হিন্দুপৰ্ব্ব ও উৎসবাদি প্রতিপালন করিয়া থাকে । ইহারা দেখিতে কৃষ্ণবর্ণ ও অত্যন্ত বলবান। স্থানীয় কুন্ত্ৰীদিগের স্তায় ইহাদের গঠন অতি সুন্দর। কিন্তু হাতে কালে কালে দাগ থাকায় কুন্তী হইতে ইহাদিগকে অনায়াসে চিনিতে পারা যায়। গৃহে এবং বাহিরে সর্বত্রই ইহারা মহারাষ্ট্রভাষায় কথা কয় । নিরালিপুরুষগণ সমস্ত মাখ কামাইয়া, কেবল মাত্র টকি রাখিয় থাকে ; এতদ্ভিন্ন দাড়ী ও গোক্ষ রাথিতে দেখা যায়। স্ত্রীলোকের পশ্চাদ্ভাগে কবরী বান্ধিয়া থাকে। পুরুষের ধুতি, চাদর, কোট এবং মহারাষ্ট্রে প্রচলিত পাগড়ী পরিধান