পাতা:বিশ্বকোষ দশম খণ্ড.djvu/৩৬০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নেপাল [ ৩৬০ J মেপাল প্রভাত সময়ে যখন হস্তের লোম অথবা গৃহাদি ছাঁতের উপরিস্থ খোলা স্পষ্টরূপে গণিতে পারা যায়, ঠিক সেই সময় হইতেই ইহাদের দিবসের আরস্ত কাল । প্রাচীন সময়ে নেপালীরা একটা তামার হাড়ীর তলায় ছিদ্র করিয়া, উহা কোন একট পাত্রস্থিত জলের উপর ভাসাইয়। দিত । ঐ হাড়ীর গাত্রে এরূপ ভাবে ছিদ্রট কাটা যে, তলদেশস্থ জল অল্পে অল্পে হাড়ীর মধ্যে প্রবেশ করিয়া, ছাড়ীকে পাত্রস্থ জলমধ্যে ডুবাইতে প্রায় এক ঘড়ী সময় লাগিত। এইরূপ প্রত্যেক বার পূরণ ও নিমজ্জন লইয়া এক এক ঘড়ী সময় নিরূপিত হয়। আমাদের দেশে পুজাদির সময় যেরূপ কাংস্ত নিৰ্ম্মিত গোলাকার ঘড়ির ব্যবহার আছে, পরে সেইরূপ ঘড়ীর সাহায্যে এক দুই ক্রমে দিনমানে শদিত হইয়া সাধারণে সময় জ্ঞাপন করে। ইহাদের মধ্যে দিবা ও রাত্রি চারি ভাগে বিভক্ত। প্রথম প্রভাত হইতে পুৰ্ব্বাস্তু কাল পর্যাস্ত, তাহার পরে ঘড়ির অঙ্ক পুনরায় এক হইতে আরব্ধ হইয়া সন্ধ্যা পর্যাস্তু থাকে। ঐরাপ নিয়মে সন্ধ্যার পর হইতে মধ্যরাত্র এবং তৎপরে পরদিন প্রভাত পৰ্য্যস্ত এইরূপ ভাবে চলিয়া আইসে ; কিন্তু আমাদের দেশে দিনরাত্র দুই ভাগে বিভক্ত ;– যথা মধ্যরাত্র হইতে মধ্যাহ্ন অর্থাৎ বেলা ১২টা এবং ১টার পর হইতে পুনরায় রাত্রি ১২টা পৰ্য্যস্ত । জtfত-তত্ত্ব। পৰ্ব্বত-শ্রেণী দ্বারা এই দেশ বহুধা বিচ্ছিন্ন হইলেও রাজ্যমধ্যে অনেক গুলি উপত্যকার স্মৃষ্টি হইয়াছে। এই সকল উপত্যকাভূমিতে নানাবিধ পাৰ্ব্বতীয় জাতির বাস দেখা যায়, তাহার এখানকার আদিম অধিবাসী মধ্যে গণ্য। কালীনদীর পূর্বস্থিত উপত্যকাসমূহে, যে কয়ট প্রধান প্রধান জাতির বাস আছে তাহদের নামই উল্লেখযোগ্য । ( ১ ) মগর জাতি-- ভেরী ও মৎস্তেস্ত্রী বা মৎস্তাভা নদীদ্বয়ের মধ্যবৰ্ত্তী পৰ্ব্বতময় প্রদেশে ইহাদের বাস। ইহারা অত্যন্ত সাহসী, সৈনিকবৃত্তির দ্বারা ইহারা জীবিকা-নিৰ্ব্বাহ করে। (২) গুরঙ্গ জাতি-উক্ত মগর জাতির বাসভূমি হইতে হিমালয়ের তুষারাবৃত স্বাণপৰ্য্যন্ত সমুদয় পৰ্ব্বত-খণ্ডে ইহাদের বাস । ( ৩ ) নেবার জাতি-কাঠমাণ্ডু উপত্যকার ‘নে’ নামক প্রদেশের আদিম অধিবাসী। নেপালের কৃষি প্রভৃতি সমস্ত কাৰ্য্যই ইছাদের দ্বারা সম্পন্ন হইলেও, এই জাতীয় সকলেই ধনহীন । এই উপত্যক। ভূমির পূর্বদিক্ৰন্থ পাৰ্ব্বত্য ভূমিতে ( ৪ ) লিখু বা যাক-খুৰা ও ( s ) কিরাত বা খোম্বো জাতির বাস। (৬) লেপচা জাতি-সিকিম ও দার্জিলিঙ্গ বিভাগের পশ্চিমপার্থে ও নেপালের পুৰ্ব্বসীমাস্তে বাস করে। (৭) ভূটিয়া জাতি— লিখু, কিরাতী ও লেপচাজাতির বাসভূমির উত্তরস্থ পৰ্ব্বতের উপত্যকাদিতে এবং তিব্বতসীমান্ত পর্যন্ত স্থানসমূছে এই জাতির বাস দেখা যায়। ভূটিয়াদিগের মধ্যে লো’ নামক স্থানবালীগণ লোকৃপা এবং তৎপাশ্ববৰ্ত্তী জাতি দুরূপ নামে খ্যাত। হিমালয়ের অপর পারে তিব্বত সমীপদেশে ভোটিয়া জাতির বাসভূমে রাংবো, সিয়েনা বা কাঠভোটিয়া, পলু-সেন, খা-সেন, সর্প প্রভৃতি পাৰ্ব্বতীয় জাতির বাস আছে। এতদ্ভিন্ন নিম্নতর উপত্যকাদিতে এবং নেপালের তরাই প্রদেশে ( ৮) কুশবার, (৯) দেনবার ও (১০ ) হায়ু, বোটিয়া (ইহারা ভূটিয়া হইতে স্বতন্ত্র ) দূরে বা দহরী, ব্ৰামু, বোক্স, চেপাং, কুমুদ, থারু প্রভৃতি জাতির বাস অাছে। এতদ্ব্যতীত ( ১১ ) সুনবার ও (১২) মূৰ্ম্মি বা তমর নামে আরও ছুইটী বিভিন্ন জাতি আছে। কালী বা সারদা নদীর পশ্চিমাংশে কুমায়ুন প্রদেশে খৃষ্টীয় দ্বাদশ শতাব্দীতে রাজপুতনা হইতে গোর্থ জাতি এখানে আসিয়া বাস করে। ইহাদের ব্রাহ্মণজাতির মধ্যে পাড়ে ও উপাধ্যায় এবং ক্ষত্রিয়দিগের মধ্যে খুশ ও থল্পী নামে থাক দেখা যায়। এখন নেপালের সমস্ত জাতির উপর ইহারাই আধিপত্য বিস্তার করিয়াছে । [ গোর্থ দেখ। ] ইংরাজ-রাজ অনুমান করেন যে, সমগ্র নেপালে প্রায় কুড়ি লক্ষ লোকের বাস, কিন্তু নেপালী-রাজ-দরবারের তালিকায় হইতে জানা যায় যে, এখানকার লোক সংখ্যা বাহান্ন লক্ষ হইতে ছাপার লক্ষের মধ্যে। নেপালে কোন কালে আদম্-কুমারী না হওয়া, প্রকৃত জন সংখ্যা নিরূপণ করা বড়ই কঠিন । পূৰ্ব্বোক্ত আদিমজাতি সত্ত্বেও এখানে বোধনাথ ও স্বয়ম্বুনাথের মন্দিরের সন্নিকটে ভূটান ও তিব্বতবাসী জাতির বাস আছে । কাঠমাণ্ডু উপত্যকায় কাশ্মীর ও ইরাকী মুসলমান বণিক সম্প্রদায়ের বাস আছে । ইহারা বহু পূৰ্ব্বকাল হইতেই এখানে উপনিবেশ স্থাপম করিয়াছে। নেপালে অসংথ্য দেবদেবীর মন্দির স্বষ্টি হওয়ায়, ব্রাহ্মণ ও পুরোহিতের সংখ্যাও বৃদ্ধি পাইয়াছে। এতদ্ব্যতীত প্রত্যেক গৃহস্থেরই একজন স্বতন্ত্র পুরোহিত অবিশুক । এই সকল পুরোহিত, ধৰ্ম্মযাজক ও শুরু আপনাপন শিষ্য বা যজমানের প্রদত্ত দক্ষিণ, ক্রিয়ালব্ধ দ্রব্যাদি এবং ব্রহ্মোত্তর জমি হইতেই, ভরণপোষণ করিয়া থাকেন ইহাদের মধ্যে রাজ-গুরুই সকলের অপেক্ষা অধিক মাননীয় । রাজ্য মধ্যে তিনি একজন ক্ষমতাপন্ন ব্যক্তি, তাহীর বাক্য আমাগু করিবার ক্ষমত কাহারও নাই । নেপালরাক্ত প্রদত্ত জমির উপসৰভোগ ব্যতীত, তিলি দেশবাসীগণের মধ্যে জাতিগত কোন দোষের মীমাংসা করিয়াও বিশেষ অর্থ উপাৰ্জ্জন করিয়া থাকেন। নেপালীগণ ব্রাহ্মণদিগকে বিশে