পাতা:বিশ্বকোষ সপ্তদশ খণ্ড.djvu/২২৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


লাম शांमों সত্যাটি, অন্তর্বাসক ও উত্তরাসভাটির সহিত তিব্বতীয় লামদিগের জান, নম্ন জার ও বল গোম্ নামক গাত্রবাদির অনেক সোসাদৃশু আছে। এতদ্ভিন্ন শাক্ত ও বৈষ্ণবদিগের স্থায় তাহার মালা জপ করে। ঐ মালায় ১০৮ট দান থাকে এবং উহার তুই পাশ্বের সুত্রে ১০টা করিয়া সাক্ষী রাখে। ১৪৮ বার মালাজপের পর এক একটী সাক্ষী ধরিয়া তাহারা মন্ত্রসংখ্যা নিরূপণ করে। এইরূপ ছুই দিকের ১৯ × ১• সাক্ষীতে তাহদের ১০৮• • জপসংখ্যা হয়। এই সকল মালা দানাও বিভিন্ন প্রকার হইয়া থাকে। সৰ্ব্বপ্রধান তষিলামার নিকট মুক্ত, চুনি, পান্ন, নীলা, প্রবাল, স্ফটিক প্রভৃতি মূল্যবান প্রস্তরে নিৰ্ম্মিত মালা দেখা যায় । এতদ্ভিন্ন সম্প্রদায়ভেদে ও দেবারাধনা বিশেষে মালার দানা পৃথক হইয়া থাকে। গে লুগ, প সম্প্রদার মধ্যে হরিদ্র বর্ণ কাঠের মালা প্রচলিত। তম্দিন পূজায় লাল চলনকাঠের এবং ছ-রশী উপাসনায় শ্বেতশঙ্খের মালা, তান্ত্রিক উপদেবতাগণের পূজার রুদ্রাক্ষ (Elæocarpus Janitus), (tte) হাড়ের মালা, অবলোকিতের পূজায় স্ফটিকের মালা, পদ্মসম্ভবের ও তাম্ দিনের পুজায় প্রবাল এবং বজ্রভৈরবের উপাসনায় মৃকরোটি ব্যবহৃত হইয়া থাকে। লামার যখন মালা জপ করেন না, তখন তাহা গলায় বা দক্ষিণ হস্তে জড়াইয়া রাখেন। মালা-জপের সময় প্রত্যেক দানা ধরিবার অগ্ৰে তাহারা ওম্প্রণব উচ্চারণ করেন, পরে দানা ধরিয়া মনে মনে মন্ত্র পাঠ করিতে থাকেন। ভিন্ন ভিন্ন দেবতার জপমঞ্জ বিভিন্ন। এই সকল লামাগণ সচরাচর আরও কএকটী দ্রব্য ব্যবহার করিয়া থাকেন। তন্মধ্যে ভজনচক্র, বক্তৃদও, ঘণ্ট, করোটি-নিৰ্ম্মিত ঢঙ্কা, খঞ্জনী, কবচ, পুথি ও অলঙ্কার প্রধান । তষিল চুণপোর প্রধান লামা সময়ে সময়ে জহরতাদি গঠিত কণ্ঠহার ধারণ করেন। কাহার কাহারও ভিক্ষাপাত্র ও সয়াসদগু আছে। তিব্বতবাসী লামাগণ ধর্শের জন্য প্রাণ বিসৰ্জন করিলেও কৰ্ম্মকাণ্ডে র্তাহীদের বিশেষ আসক্তি দৃষ্ট হয়। মঠবাসী যতি, গ্রাম্য পুরোহিত, গুহাবাসী তপঃপরায়ণ লামা ভিক্ষু অথবা কৃষিবাণিজ্যাদি কৰ্ম্মে লিপ্ত লামাগণ পৃথক পৃথক্ কার্য্যে ব্যাপৃত থাকিয়া জীবনযাত্রা নিৰ্ব্বাহ করিতেছেন। এই বিভিন্ন শ্রেণীর লামাদিগের নিত্যকৰ্ম্মপদ্ধতিও স্বতন্ত্র। লামানগরীর পোতল পৰ্ব্বতস্থ শ্রেষ্ঠ লামাসক্তারামে বৌদ্ধযতিগণ যে প্রথা অবলম্বনে দৈনিক কাৰ্য্য সমাধা করিয়া থাকেন, তাহাই নিয়ে সংক্ষিপ্তভাবে উদ্ভূত হইল,— * রাত্রিকালে খখনই মিত্রাভঙ্গ হইবে, তখনই ধতিগণ শয্যাত্যাগ করিয়া থাকেন। পরে গাযোখানপুৰ্ব্বক পরিচ্ছদ পরিধান করিয়া नरक्ऊ शबtब्र शृंश्मशाइ ८क्कैौन्न जभरक ठिनबांग्र cमादांश्लष्ण [ २२१ ] - প্রণাম করিবেন । তদনম্ভর জীবনযাত্রানিখৰ্বাহের উপায় প্রার্থনা করিয়া বুদ্ধ ও বোধিসত্ত্বদিগের উদ্দেশে স্তব এবং সঙ্গে সঙ্গে সুত্রগ্রন্থ হইতে কএকটা মন্ত্র পাঠ করিবেন। স্তম্ব ও মন্ত্র পাঠাস্তে “ওঁ খেচরগণয় স্ত্রী স্ত্রী স্বাহ৷” মন্ত্র তিনবার পাঠ করিয়া যতিগণ স্ব স্ব পদতলে থুতু প্রদান করিবেন। তাছাদের বিশ্বাস, দ্বিৰাভাগে ভূপৃষ্ঠে ভ্রমণ জন্ত যে সকল জীব পদদলিত হইয়া পঞ্চস্থ - প্রাপ্ত হয়, এই মন্ত্রবলে তাহারা অমরাবতীর ইন্দ্রপুরে দেবরূপে জন্ম পরিগ্রহ করিয়া থাকে । এই সকল দেবারাধনার পর, যদি রাত্রি প্রভাত হইতে অধিক ৰিলম্ব থাকে, তাহা হইলে সেই যতি পুনরায় শয্যাশায়ী হইয়া নিদ্রা বাইতে পারেন, কিন্তু যদি ছুই বা চারি দগু বাকী থাকে, তাহা হইলে তিনি আর নিদ্রিত হইবেন না, সেই স্বল্পকাল "ন্মোন লমূ” ভজনগীতি বা মন্ত্র পাঠ করিয়া রাত্রি যাপন করিবেন এবং ঘণ্টাধ্বনি হইলে যখন সকলে মুপ্তোধিত হইবেন, তখন তিনিও শয্যা ত্যাগ করিয়া শঙ্খধ্বনি ও শিঙ্গাধবনি পৰ্য্যন্তু আপনার বেশ পরিধানাদি কার্য্যে ব্যাপৃত থাকিবেন। শিঙ্গাধ্বনি হইবামাত্রই সকলে স্ব স্ব মঠকক্ষ পরিত্যাগ করিয়া “দে1বছল নামক প্রস্তর মণ্ডপে উপাসনার্থ সমবেত হইবেন। ঐ সকল প্রস্তরাসনে দণ্ডায়মান থাকিয় তাহারা ‘ওঁ অৰ্থং চার্যং বিমনসে! উৎসুক্ষ্ম মহাক্রোধ হংফটু” মন্ত্র পাঠপূৰ্ব্বক মনের পাপ ও কলুষালি চিন্তা করিবেন। উহার দ্বারা তাহাঙ্গের চিত্তপাতক বিদূরিত হইয়া থাকে। তদনন্তর মুগ, পা নামক ক্ষারমৃত্তিক বা সাবান যোগে স্ব স্ব তাম্র ঝারিস্থ জল দ্বারা হস্ত পদাদি প্রক্ষালন করিবেন । হস্তপদের স্থান বিশেষ প্রক্ষালনকালে তাহারা বিশেষ বিশেষ মন্ত্র পাঠ করিয়া থাকেন। মুখাদি প্রক্ষালনের পর শৌচ দেহে তাহার হস্তে মালা লইয়া জপ করিতে করিতে তারা দেবী ও মঞ্জুশ্রীর উদ্দেশে মন্ত্র পাঠ করেন, সময় থাকলে কেহ কেহ স্ব স্ব কুলাধিষ্ঠাত্রী দেবতার স্বতি পাঠও করিয়া থাকেন। এই সকল কাৰ্য্য সমাধান করিতে প্রায় ১৫ মিনিট সময় লাগে। তাহার পর দ্বিতীয় বার শঙ্খধ্বনি হইলে গে-লোঙ যতিগণ মন্দিয়স্বারের সমক্ষে যাইয়া এবং গেৎসুলের মন্দিরসন্মুখস্থ প্রাঙ্গণে ধাড়াইয়া দেবোদেশে প্রণাম করেন। তাহার পর মশিরদ্বার উন্মুক্ত হইলে একে একে সকলেই মন্দিরে প্রবেশ করেন। ঐ সময়ে দগুহন্তে গেকো দ্বারপথে দগুীয়মান থাকেন। সকলে নিজনিজ মাথুরে শ্রেণীবদ্ধভাবেও মর্যাদামুরূপে স্কৃষ্ক্রেয় ভায় आनन*िफ़ि इहेब्रफे*विठे श्रण छुणैौब्रयांग्र अंधक्षनि इद्र ! फधन সকলে সমস্বরে ঐ সময়কার কএকটী মির্দিষ্ট মন্ত্র পাঠ করেন। তাহার পর চা পান করেন। চা পান করিবার পূৰ্ব্বে অধ্যক্ষ লাম সমবেত সকলের স্বস্তি স্বাক্য উচ্চারণ কৰিলে আপন আপন চা