পাতা:বিশ্বকোষ সপ্তদশ খণ্ড.djvu/৪০৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বঙ্গদেশ (পুরাবৃত্ত ) অর্থাৎ জল্পাদিগের জনক বলিয়া ঘৃণিত এবং অথৰ্ব্বসংহিতার অঙ্গ ও মগধবাসীর প্রতি অনার্য্যোচিত শ্লেষোক্তি দেখা যায় । ঐ সকল প্রমাণ হইতে মনে হইৰে যে, বৈদিকযুগে বর্তমান বেহার হইতে বাঙ্গল পৰ্য্যন্ত ভূভাগে অনার্য বা আর্য্যেতর জাতির প্রভাব বিস্তৃত ছিল । অনাৰ্য্যপ্রভাব হেতুই ঐ সকল স্থানে আর্যাগণ বাস করা সুবিধাজনক বা নিরাপদ মনে করিতেন না । এমন কি, বৌধায়ন ধৰ্ম্মস্থত্রে লিখিত আছে যে বঙ্গ, কলিঙ্গ, পুং প্রভৃতি দেশে বেড়াইতে আসিলেও ভ্রমণকারকে পুনস্তোম বা সৰ্ব্বপৃষ্ঠা ইষ্ট করিতে হইত। মনুসংহিতা-রচনাকালে সম্ভবতঃ বঙ্গের নির্জন বনমধ্যে দুই একজন আর্য্যঞ্চবির আশ্রম গঠিত এবং সেই সঙ্গে ঐ সকল স্থান তীর্থ বলিয়া গণ্য হইয়াছিল। মনুসংহিতাকার তাই ব্যবস্থা করিয়া গিয়াছেন যে, তীর্থযাত্রা ব্যতীত অঙ্গ বঙ্গাদি দেশে কোন আর্য্যসস্তান যাইতে পরিবে না,—তীর্থযাত্রা ব্যতীত গমন করিলে দ্বিজাতিকে পুনঃ সংস্কার গ্রহণ করিতে হইবে ।" ঐতরেয় ব্রাহ্মণে পুং গণ - বিশ্বামিয়ের সন্তান বলিয়া নির্দিষ্ট ' । অথচ মনুসংহিতায় পৌণ্ডকগণের বৃষলত্ব বা শূদ্ৰন্থ প্রাপ্তির কথা আছে । ( ১৯৪৪) ইহাতে মনে হইবে যে যখন বিশ্বামিত্রের বংশধরগণ এদেশে আসিয়া বাস করেন, তখন এদেশে অপর আর্য্য ত্রৈবর্ণিকে বাস ছিল না, একারণ ব্রাহ্মণ অভাবে তাছাদের সংস্কার লোপের সহিত র্তাহারা বৃষল ও এখানকার অনাৰ্য্যঞ্জাতির সংস্রবে দয়া বলিয়া চিহ্নিত হইয়াছিলেন। দস্থ্য ও বৃষল দেখ। ] কোন সময়ে বঙ্গদেশে আর্যসভ্যতা প্রতিষ্ঠিত হইল, তাহ ঠিক জানিবার উপায় নাই। রামায়ণের সময়ে স্বত্রপাত ও মহাভারতীয় যুগে আৰ্যসভ্যতা প্রতিষ্ঠিত হইয়াছিল, তাহার প্রমাণ পাওয়া যায়। রামায়ণে লিখিত আছে যে চন্দ্রবংশীয় অমূর্তরঞ্জা নামে এক য়াজা ধৰ্ম্মারণ্যের নিকট প্রাগ জ্যোতিরপুর স্থাপন করেন। শতপথব্রাহ্মণ প্রভৃতি বৈদিক গ্রন্থ হইতেই প্রমাণিত হইয়াছে যে, বহু পুৰ্ব্বকালে মিথিলার বিদেঘ মাথৰ কর্তৃক জাৰ্যসভ্যতা বিস্তৃত হইয়াছিল। বর্তমান জলপাইগুটী | রদপুর হইতে আসামের পূর্বসীমা পর্যন্ত প্রাচীন প্রাগজ্যোতিষ । “जबवबकनिरबयूcनोब्राहेमभtषद् छ् । ोर्षथाबा३ मि भन्नझ्न्। शूनःगरफोब्रमईछि इं" (मर) ( ) মাছজেলা এখনও পুণ্ড গণের স্বাস আছে । পূও দেখ ] ( १ ) :५१७५।। ११.tः =षध:ि भूशन्! भूङिक्ष। श्ष श्रृत्तःि, toviभिज्॥ षश्ना निि: r ( १॥sv ) ब्राभाद्र* st०८ गर्न । ( * } { v ) [ 8०२ 1 বঙ্গদেশ ( পুরাবৃত্ত ) দেশ বিস্তৃত ছিল, প্রাগজ্যোতিষপুর (বর্তমান গৌহাটী ) উক্ত প্রাগজ্যোতিষের রাজধানী। এখন কথা হইতেছে যে, মিথিলা (বর্তমান দরভাঙ্গ ) ও আসামে আর্য্যসভ্যতা বিস্তৃত হইল, অথচ মধ্যে অঙ্গ, বঙ্গ ও পৌঁণ্ডে আর্যোপনিবেশ স্থাপিত হয় নাই, তাহা কি কখন সম্ভবপর ? মহাভারতে কর্ণপর্কে (asঅঃ) লিখিত আছে, "পৌণ্ড, কলিঙ্গ, মগধ ও চেদি দেশীয় মহাত্মার সকলেই শাশ্বত পুরাতন ধৰ্ম্ম সবিশেষ অবগত অাছেন এবং তদনুসারে কার্য্য করিয়া থাকেন” ” এই মহাভারতের উক্তি হইতে স্পষ্টই জানা যাইতেছে যে তৎপুর্বেই পেণ্ডে অর্থাৎ এখনকার উত্তর বঙ্গে বৈদিক ধৰ্ম্ম ও আর্য্যসভ্যতা প্রবেশ লাভ করিয়াছিল । হরিবংশ পাঠে অবগত হওয়া যায় যে, যযাতিপুত্র পুরুর অধস্তন ২২শ পুরুষে মহারাজ বলি জন্মগ্রহণ করেন। ইনি পরম যোগী ও নৃপতি ছিলেন । ইহার বংশধর পাঁচ পুত্র অঙ্গ, বঙ্গ, মুগ্ধ, পুং ও কলিঙ্গ । ইহারাই মহারাজ বলির ক্ষত্রিয় সন্তান, কিন্তু তাহাদের বংশধর পুত্ৰগণ কালক্রমে ব্রাহ্মণত্ব লাভ করেন ।’’ - _ মহাভারতের আদিপর্কে ( ১১৪ অধ্যায় ) বর্ণিত হইয়াছে, "ভূলোক পরশুরাম কর্তৃক নিঃক্ষত্রিয় হইলে অনেক ক্ষত্রিয়-পত্নী বেদপারগ ব্রাহ্মণদ্বারা সস্তান উৎপাদন করিয়া লইলেম । বেদের বিধান এই, যে পাণিগ্রহণ করে, তাহার ক্ষেত্রে যে সন্তান জন্মে, সেই সন্তান তাহারই হয় । অতএব ধৰ্ম্মাচরণ ভাবিয়াই ক্ষত্রিয়পত্নীগণ ব্রাহ্মণের সহবাস করিয়াছিল। এইরূপ ক্ষেত্ৰজ পুত্রের দৃষ্টান্ত দেখাইবার জন্ত মহাভারতকার এই পুরাতন ইতিহাস কীৰ্ত্তন করিয়াছেন— ‘ক্ষত্রিয়রাজ বলির পুত্রসস্তান হয় নাই। তিনি একদিন গঙ্গাস্নান করিতে আসিয়া দেখিলেন, এক অন্ধগুধি মদীয় স্রোতে ভাসিয়া আসিতেছেন। ধাৰ্ম্মিক রাজা অবিলম্বে তাহাকে 'ग्झिां नेिष् अीगाग्र अनिट्णन । cमं भुः अधिव नाम । দীর্ঘতমা। ধাৰ্ম্মিক নরপতি র্তাহার ক্ষেত্রে পুত্রোৎপাদন করিবার জন্ত ঋষিকে অমুরোধ করেন । তদনুসারে তাহার মহিষীর ( ० ) पात्र छ जोखेोइ ऐछिहान sम रूोभ ७० श्रृंो । ( ১• ) “কোশলা: কপিপৌণ্ড শ, কালিঙ্গ স্বাগধান্তখ৷ d:नद्र-क अशांछनी कई९ जांनसि नाचङ५ " ( रू*** selss ) (১১) “মছাৰোগী স তু বলিষ্ঠভূষ স্থপতি: পুর। भूजबू९नाश्ब्राशन **वरनकद्राम् कूषि । श्रजः यथकtछ बरल पण: प्रचखरेथद छ ॥ পুণ্ডু কলিজশ্চ ভ৭ খালেং ক্ষত্রগুচ্যতে । वारणको अाकनारेकव च्छ तरक्कब्र पूवि ॥” ( शब्रिदत्न ००००-०४ )