পাতা:বেতালপঞ্চবিংশতি.pdf/১৩৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।
১২৭
১২৭
বেতালপঞ্চবিংশতি

করিব। ইহা কহিয়া আমি রোদন করিতে লাগিলাম। তখন তিনি পূর্ব্বার্জ্জিত স্নেহরসের সহায়তা দ্বারা আমার বিনয়ের বশীভূত হইয়া কহিলেন এক মহাবল পরাক্রান্ত বীরপুরুষ আসিয়া সেই রাক্ষসের প্রাণদণ্ড করিলে তোমার শাপমোচন হইবেক। আমি সেই শাপানুসারে এই পাপাবিষ্ট ছিলাম। বহু দিনের পর তুমি আমাকে মুক্ত করিলে। এক্ষণে অনুমতি কর পিতৃদর্শনে যাই।

রাজা কহিলেন যদি তুমি উপকার স্বীকার কর তবে প্রথমে এক বার আমার ধাজধানীতে চল পরে পিতৃদর্শনে যাইবে। রত্নমঞ্জরী মহোপকারকের নিকট অবশ্যকর্ত্তব্য কৃতজ্ঞতাস্বীকারের অন্যথাভাবে অধর্ম্ম জানিয়া রাজার প্রার্থনায় সম্মত হইলে তিনি তাহাকে সমভিব্যাহারে লইয়া রাজধানীতে উপস্থিত হইলেন এবং কিয়ৎ কাল তৎসহবাসে বিষয়রসে কালযাপন করিয়া পরিশেষে অনিচ্ছাপূর্ব্বক তাহাকে পিতৃদর্শনে যাইতে অনুমতি করিলেন। তখন রত্নমঞ্জরী কহিল মহারাজ বহু কাল মনুষ্যসহবাস দ্বারা আমার গন্ধর্ব্বত্ব গিয়াছে এখন মনুষ্যভাবাপন্ন হইয়াছি। পিতা আমার গন্ধর্ব্বপতি এক্ষণে তাঁহার নিকটে গিয়া সমুচিত আদর পাইব না। অতএব আর আমার তথায় যাইবে অভিলাষ নাই তোমার নিকটেই যাবজ্জীবন অবস্থিতি কবিব। রাজা