পাতা:ব্যঙ্গকৌতুক - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৩৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রাচীন দেবতার নূতন বিপদ O 3) 売 হইয় একপ্রকার গায়ের জোরে আমাদের সে কাজ কাড়িয়া লইয়াছে। অতএব উক্ত ডিপার্টমেণ্ট হইতে আমাদের নাম কাটিয়া আজ হইতে সেই প্রবল শক্তি নূতন দেবতার নাম বাহাল হৌক ।” সৰ্ব্বসম্মতিক্রমে তাহাই স্থির হইল । তখন যম উঠিয়া কহিলেন,"এতোকাল আমিই নরলোকের সর্বাপেক্ষ ভয়ের কারণ ছিলাম, কিন্তু এখন সেখানে আমা অপেক্ষা ভয় করে এমন সকল প্রাণীর উদ্ভব হইয়াছে। অতএব, পুলিস্ দারোগাকে আমার যমদণ্ড ছাড়িয়া দিয়| আমি অদ্য হইতে কাজে ইস্তফা দিতে চাই ।” অধিকাংশ দেবতার মতে যমরাজের প্রস্তাব নিতান্ত অসঙ্গত না হইলেও ব্যাপারটা গুরুতর বিধায় আগামী মাটিংয়ে চূড়ান্ত নিষ্পত্তির অপেক্ষায় আপাতত স্থগিত রহিল । কাৰ্ত্তিকেয় উঠিয় কহিলেন, “গুরুদেবের বক্তৃতার পর আমাকে আর । অধিক কিছু বলিতে হইবে না। আমি দেবসেনাপতি । কিন্তু দেবগণকে রক্ষা করা আমার অসাধ্য হইয়। উঠিয়াছে, অতএব, হয় আমার পোষ্ট্র এবলিশ করিয়া এষ্টাব্লিশ্বমেন্ট কমানে হোক, নয় কোনো সাময়িক পত্রের সম্পাদকের উপর স্বৰ্গরক্ষাকাৰ্য্যের ভার দেওয়া হোক । এমন কি, আমার বহুকালের ময়ুরটিও আমি বিনামূল্যে তাহাদিগকে ছাড়িয়া দিতে প্রস্তুত আছি । ইহার পেখম ছড়াইলে তাহাদের অনেকটা বিজ্ঞাপনের কাজ হইবে।” দেবতাদের সম্মতিক্রমে সেনাপতির পোষ্ট্র এবলিশ হইল, এখন হইতে ময়ূরের খোরাকী তাহার নিজের তহবিল হইতে পড়িবে। বরুণ উঠিয়া অশ্রুজল বর্ষণ করিয়া কহিলেন—“নরলোকে আমার কি আর কোনো প্রয়োজন আছে ? খোলাভাটিবাহিনী বারুণী আমাকে উচ্ছেদ করিবার সঙ্কল্প করিয়াছে। এই বেলা মানে মানে সময় থাকিতে সরিতে ইচ্ছা করি ।”