পাতা:ব্যঙ্গকৌতুক - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৯৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বশীকরণ సె( মাতাজি। গদ্দভের দুই কান দুই হাতে চেপে ধ’রে— অন্নদা। ঠিক ব’লেচেন, কোসে চেপে ধ’রেচে— মাতাজি । একটি সুন্দরী কন্যা— অন্নদা। পরম সুন্দরী— মাতাজি। ঈশানকোণের দিকে চ’লেচেন— অন্নদা। দিকৃভম হ’য়ে গেচে—কোন কোণে যাচ্চেন তা ঠিক বলতে পারুচিনে ! কিন্তু ছুটিয়ে চলেচেন বটে ! গাধাটার হাফ ধ’রে গেল ! মাতাজি । ছুটিয়ে যাচ্চেন না কি ? তবে তো আর একবার— অন্নদা। না, না, ছুটিয়ে যাবেন কেন—কী-রকম যাওয়াট। আপনি স্থির ক’বৃচেন বলুন দেখি ? মাতাজি । একবার এগিয়ে যাচ্চেন, আবার পিছু হ’টে পিছিয়ে আসচেন । অন্নদা। ঠিক তাই ! এগোচ্চেন আর পিচোচ্চেন ! গাধাটার জিভ বেরিয়ে পড়েচে । মাতাজি । তা হ’লে ঠিক হ’য়েচে । এবার সময় হ’লে । ওলো মাতঙ্গিনী তোরা সবাই আয় ! ای হুলুধ্বনি-শঙ্খধ্বনি করিতে করিতে স্ত্রীদলের প্রবেশ (অন্নদার বামে মাতাজির উপবেশন ও তাহার হস্তে হস্তস্থাপন) অন্নদা। এটা বেশ লাগচে, কিন্তু ব্যাপারটা কী ঠিক্‌ বুঝতে পারুচিনে । রমণীগণের গান এবার সখি সোনার মুগ দেয় বুঝি দেয় ধরা ! আয় গো তোরা পুরাঙ্গন আয় সবে অায় ত্বর !