পাতা:যশোহর-খুল্‌নার ইতিহাস প্রথম খণ্ড.djvu/১৫৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

একাদশ পরিচ্ছেদ-সুন্দরবনে শিকার ও ভ্রমণ। ১০৭ যেমন অভিজ্ঞ, তেমন তত্ত্বানুসন্ধিৎসু, যেমন উদ্যম ও উৎসাহশীল তেমনই সবল ও কষ্টসহিষ্ণু। তিনি যেমন শিশুর মত সরল, তেমনই বৃদ্ধোপযোগী জ্ঞানগম্ভীর; তিনি যেমন স্বজাতিবৎসল, তেমনি রাজভক্ত ; বনবিভাগীয় আইন ও নিয়মাবলী তাহার এরূপভাবে জানা আছে এবং ভ্রমণকালে এমনভাবে ঐ সমস্ত অক্ষরে অক্ষরে মানিয়া চলিয়া থাকেন, যে র্তাহার সে প্রকৃতি এমন কি ফরেষ্ট বিভাগীয় কৰ্ম্মচারিগণেরও অনুকরণীয় হইতে পারে। এতগুলি গুণের সহিত র্তাহার সাৰ্ব্বজনীন সমাজিকতা এবং দেবপ্রকৃতিক সহৃদয়তা তাহাকে লোকমাত্রেরই বরণীয় ও ভালবাসার বস্তু করিয়া রাখিয়াছে। সদাশয় গবর্ণমেণ্টও তাহার গুণের সমাদর করিতে বিস্কৃত হন নাই । তাহার ৫টি বন্দুকের, ১টা Riflন বন্দুকের, একটি রিভলবারের পাশ আছে ; তিনি গবর্ণমেণ্টের এবংরক্ষিত বনে শিকারের জন্ত নির্দিষ্ট কয়েক মাসে ( নভেম্বর হইতে এপ্রিল ) প্রতিসপ্তাহে ২টি করিয়া হরিণ শিকার করিবার অনুমতি পাইয়াছেন। রাজাধিরাজ পঞ্চম জর্জের রাজ্যভিষেক উপলক্ষে গবর্ণমেণ্ট হইতে তিনি “রায়সাহেব” খেতাব এবং একখানি বহুমূল্য তরবারি খেলাত পাইয়াছেন। উপাধি লাভের পরে তিনি অস্ত্র-আইন হইতে বিমুক্ত হইয়াছেন। তিনি স্বনামধন্ত দানবীর ডাক্তার পি, সি, রায়ের অগ্রজ এবং বঙ্গবরণীয় প্রসিদ্ধ এক কায়স্থকুলের মুখোজ্জ্বলকারী। এরূপ এক কৃতী পুরুষের পক্ষপুটাশ্রয়ে ভীষণ জঙ্গলে গিয়া, ঐতিহাসিক তথ্য সংগ্ৰহ করিবার সুযোগ পাইয়া আমরা ধন্ত হইয়াছিলাম । প্রত্যেকবারই আমাদের সঙ্গে একথানি বড় নৌকা ও একখানি ছোট ডিঙ্গি থাকিত। আময় ৮৯ জন যাইতাম, তদ্ব্যতীত মাজিমাল্য ৪৫ জন ছিল। বড় নৌকায় আমরা থাকিতাম, রাধিতাম ও খাইতাম ; ছোট ডিজিতে বসিয়া স্নানাদি করিতাম এবং ছোট খালে প্রবেশ করিতাম। সুন্দরবনের অধিষ্ঠাত্রী দেবতাকে বনদেবতা বা বনবিবি বলে। অজ্ঞানান্ধকার বিলুপ্ত করিয়া যাহার কাঠুরিয়াদিগকে সেই বনদেবীর রাজ্য মধ্যে নিরাপদে পথপ্রদর্শন করে, তাহারা বাওয়ালী নামে খ্যাত। এই বাওয়ালীগণ সুন্দরবনের অনেক তথ্য জানে ; আমরা ইহাদের নিকট অনেক সকল্পন গল্পমিশ্রিত সংবাদ পাইতাম এবং ঐযুক্ত নলিনী বাবুও গত বিংশাধিক বর্ষের অভিজ্ঞতার ফলে অনেক প্রত্নতত্বের সাক্ষী ছিলেন। তদনুসারে তথ্য সংগ্ৰন্থ ও কীৰ্ত্তিচিহ্নের ফটো লইবার জন্ত জামায়