পাতা:যশোহর-খুল্‌নার ইতিহাস প্রথম খণ্ড.djvu/৪৬০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

৩৬৮ যশোহর-খুলনার ইতিহাস শৈবালময়ী নদীর বাকের মুথে একটি সুন্দর পুলের সন্নিকটে, হরিদাস ঠাকুরের আস্তানাটি দেখিতে অতি সুন্দর। হিন্দুর মধ্যে যে সেস্থানের সন্ধান রাখে, সে কখনও প্রণাম না করিয়া সেস্থান অতিক্রম কয়ে না। স্থানীয় লোকেরা চিহ্নিত করিবার জন্ত সে স্থানটি ঘিরিয়া রাখিয়াছে। এই স্থান হইতে হরিদাস গঙ্গাতীর উদ্দেশ্রে পশ্চিমদিকে চলিয়া যান। এই সময়েই যশোহর খুলনার সহিত র্তাহার সম্বন্ধ শেষ হয়। খুলনায় তাহার জন্মভূমি এবং যশোহরে তাহার বিকাশ ক্ষেত্র, তিনি ইহার কোন স্থানই দর্শন করিবার জন্ত আর প্রত্যাগমন করেন নাই । কিন্তু তাহার জন্মলাভে এবং চরিত্রখ্যাতিতে যশোহর-খুলনা পবিত্র হইয় রহিয়াছে। এক ভীষণ বিপ্লবের যুগে তিনি যে নূতন মত ও নূতন পথ দেখাইয়াছিলেন, চৈতন্যদেবের আবির্ভাবের প্রাক্কালে তিনি যে নামের মাহাত্ম্য কীৰ্ত্তন করিয়া যুগ-ধৰ্ম্ম প্রচার করিয়াছিলেন, তাহার জন্ত যশোহর-খুলনার যথেষ্ট গৌরব করিবার বিষয় আছে। হরিদাসের পরবর্তী জীবনের সহিত বর্তমান ইতিহাসের বিশেষ সম্পর্ক নাই, তবুও সে জীবনকথা সম্পূর্ণ করিবার জন্ত অতি সংক্ষেপে উহার প্রধান ঘটনাগুলির উল্লেখ করিতেছি। যশোহর ত্যাগ করিয়া হরিদাস কয়েক বৎসর নানাস্থান পরিভ্রমণ করতঃ অবশেষে সপ্তগ্রামের সন্নিকটে চাদপুরে আসিয়া উপনীত হন। তথায় এক ঋষিকল্প ব্রাহ্মণের পরিচর্য্যায় শান্তিলাভ করিয়া নির্জন কুটীরে জপ-যজ্ঞ সম্পন্ন করিতে থাকেন। যে রঘুনাথ দাস পরিণত বয়সে বৃন্দাবনে গোস্বামী পদে বরিত হইয়াছিলেন, তিনি এসময়ে বালক । বালক রঘুনাথের সহিত প্রৌঢ় হরিদাসের এই সময়ে সাক্ষাৎ হয়। এ সময়ে শান্তিপুরে অদ্বৈত আচাৰ্য্য পণ্ডিত ও ভক্ত বলিয়া দেশপ্রসিদ্ধ হইয়াছিলেন ; হরিদাস র্তাহার সহিত সাক্ষাৎ করিবার জন্ত শান্তিপুরে যান। কিন্তু সেখানেও তাহার বেশী দিন থাকা হইল না । কারণ আচাৰ্য্য র্তাহাকে অত্যধিক আদর করিতেন, সন্ন্যাসী কি তত আদর সহিত পারেন? শান্তিপুর ছাড়িয়া হরিদাস ফুলিয়াগ্রামে আসিলেন। শান্তিপুরে অদ্বৈত ও ফুলিয়ায় হরিদাস ; উভয়ের সম্মিলনে প্রেমতরঙ্গে সে দেশ ভাসিয়া গেল। নামানুকীৰ্ত্তনে দেশ প্রতিধ্বনিত হইতে লাগিল। দেশাধ্যক্ষ মুসলমান কাজীর তাহ সহিল না। তখন দেশ শাসনজন্ত দেশমধ্যে নানাবিভাগে মুসলমান কাজী বা বিচারক নিযুক্ত হইতেন। শান্তিপুর প্রভৃতি স্থানে