পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অচলিত) দ্বিতীয় খণ্ড.pdf/১৫৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


〉や8 রবীন্দ্র-রচনাবলী ইংরাজি বুঝে না, সে ব্যক্তিকে ঐ লেখা পড়িতে দাও, কথাগুলি তাহার প্রাণের মধ্যে যদি প্রবেশ করিতে পারে তবেই বুঝিলাম যে, ই, ইংরাজি ভাবটা বাঙ্গালা হইয়া দাড়াইয়াছে। নহিলে অনুবাদ করিলেই যে ইংরাজি বাঙ্গালা হইয়া যাইবে, এমন কোন কথা নাই । 思 অতএব, বাঙ্গালা ভাব ও ভাবের ভাষা যতই সংগ্রহ করা যাইবে ততই যে আমাদের সাহিত্যের উপকার হইবে তাহাতে আর সন্দেহ নাই। এই নিমিত্তই সঙ্গীত-সংগ্রহের প্রকাশক বঙ্গসাহিত্যাকুরাগী সকলেরই বিশেষ কৃতজ্ঞতাভাজন হইয়াছেন। Universal love প্রভৃতি বড় বড় কথা বিদেশীদের মুখ হইতে বড়ই ভাল শুনায়, কিন্তু ভিখারীরা আমাদের দ্বারে দ্বারে সেই কথা গাহিয়া বেড়াইতেছে, আমাদের কানে পৌছায় না কেন ? “আয় রে আয়, জগাই মাধাই আয় । হরি-সঙ্কীৰ্ত্তনে নাচবি যদি আয় । (ওরে) মার খেয়েচি না হয় আরো খাব ; ওরে তৰু হরির নামটি দিব আয় ওরে মেরেছে কলসীর কানা, তাই বলে কি প্রেম দিব না আয় ।” বাউল বলিতেছে,

  • সে প্রেম করতে গেলে মরতে হয় । আত্ম-সুর্থীর মিছে সে প্রেমের আশয় ।” " . গোড়াতেই মরা চাই। আত্মহত্যা না করিলে প্রেম করা হয় না । ( পূর্বেই আর একটি গানে বলা হইয়াছে,— یA

“যার আমি মরেছে, তার সাধন হয়েছে, কোটি জন্মের পুণ্যের ফল তার উদয় হয়েছে।” ) তার পরে বলিতেছে,— \ “যে প্রাণ ক’রে পণ পরে প্রেম-রতন তার থাকে না যমের ভয় ।” 4. " যে মরে তার আর মরণের ভয় থাকে না । জগৎকে সে ভালবাসে এই জন্য সে জগৎ হইয়া যায়, সে একটি অতি ক্ষুদ্র “আমি” মাত্র নহে, যে যমের ভয় করিবে ; সে সমস্ত-বিশ্বচরাচর । w