পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অচলিত) প্রথম খণ্ড.pdf/৬৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কবি-কাহিনী अथक शभूष क्षिप्रा गौन निब्रांजग्न পথে পথে করিতেছে ভিক্ষাঙ্গসন্ধান ! সহস্ৰ পীড়িতদের অভিশাপ লোয়ে সহশ্রের রক্তধারে ক্ষালিত আসনে সমস্ত পৃথিবী রাজা করিছে শাসন, বাধিয়া গলায় সেই শাসনের রঙ্গু সমস্ত পৃথিবী তার রহিয়াছে দাস ! সহস্ৰ পীড়ন সহি আনত মাথায় একের দাসত্বে রত অযুত মানব ! ভাবিয়া দেখিলে মন উঠে গো শিহরি— ভ্ৰমান্ধ দাসের জাতি সমস্ত মানুষ । এ অশাস্তি কবে দেব হবে দূরীভূত । অত্যাচার-গুরুভারে হোয়ে নিপীড়িত সমস্ত পৃথিবী, দেব, করিছে ক্ৰন্দন ! স্বখ শাস্তি সেথা হোতে লয়েছে বিদায় ! কবে, দেব, এ রজনী হবে অবসান ? স্নান করি প্রভাতের শিশিরসলিলে তরুণ রবির করে হাসিবে পৃথিবী ! অযুত মানবগণ এক কণ্ঠে, দেব, এক গান গাইবেক স্বৰ্গ পূর্ণ করি! নাইক দরিদ্র ধনী অধিপতি প্রজা— কেহ কারো কুটীয়েতে করিলে গমন মর্য্যাদার অপমান করিবে না মনে, সকলেই সকলের করিতেছে সেবা, কেহ কারো প্ৰভু নয়, নহে কারো দাস ! নাই ভিন্ন জাতি আর নাই ভিন্ন ভাব৷ নাই ভিন্ন দেশ, ভিন্ন আচার ব্যাভার ! সকলেই আপনার আপনার লোয়ে পরিশ্রম করিতেছে প্রফুল্ল-অস্তরে । কেহ কারে স্বখে নাহি দেয় গো কণ্টক, 89