পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (একবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১১৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ছড়ার ছবি স্ত্রী দাড়িয়ে জুয়ার ধরে দুচোখ শুধু মোছে, আজ সকালে জীবনটা তার কিছুতেই না রোচে । ছেলে গেছে জাম কুড়োতে দিঘির পাড়ে উঠি, মা তারে আজ ভুলে অাছে তাই পেয়েছে ছুটি । স্ত্রী বলেছে বারে বারে, যে ক’রে হোক খেটে সংসারটা চালাৰে সে, দিন যাবে তার কেটে । ঘর ছাইতে খড়ের জাঠির জোগান দেবে লে যে, গোবর দিয়ে নিকিয়ে দেবে দেয়াল পাচিল মেঝে । মাঠের থেকে খড়কে কাঠি আলবে বেছে বেছে, বাট বেঁধে কুমোরটুলির হাটে আসবে বেচে । টেকিতে ধান ভেনে দেবে বামুনদিদির ঘরে, খুদকুঁড়ে যা জুটবে তাতেই চলবে দুর্বছরে । দূর দেশেতে বলে বলে মিথ্য অকারণে কোনোমতেই ভান যেন না রয় স্বামীর মনে । সময় হল, ওই তো এল খেয়াঘাটের মাঝি, দিন না যেতে রহিমগঞ্জে যেতেই হবে আজি । সেইখানেতে চৌকিদারি করে ওদের জ্ঞাতি, মহেশখুড়োর মেঝে জামাই, নিতাই দাসের নাতি । নতুন নতুন গা পেরিয়ে অজান এই পথে পৌছবে পাচদিনের পরে শহর কোনোমতে । সেইখানে কোন হালসিবাগান, ওদের গ্রামের কালো, শর্বেভেলের দোকান লেখায় চালাচ্ছে খুব ভালো । গেলে লেখায় কালুর খবর সবাই বলে দেবে— তার পরে সব সহজ হবে, কী হবে আর ভেবে । স্ত্রী বললে, “কালুদাকে খবরটা এই জিম্বো, ওদের গায়ের বাদল পালের জাঠতুত ভাই প্রিয় ৰিয়ে করতে জাসবে অামার ভাইঝি মজিকাকে ऐंठनबिट्ट* 2यञांtथं ।* उथांबांछ *७es