পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (চতুর্দশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৮৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পূরবী বডি অন্ধ কেবিন আলোয় অঁাধার গোলা, বন্ধ বাতাস কিসের গন্ধে ঘোলা । মুখ-ধোবার ঐ ব্যাপারখানা দাড়িয়ে আছে সোজা, ক্লাস্ত চোখের বোঝা । জুলছে কাপড় peg এ বিজলি-পাখার হাওয়ার ঝাপট লেগে । গায়ে গায়ে ঘেষে জিনিসপত্র অাছে কায়ক্লেশে । বিছানাটা কৃপণ-গতিকের অনিচ্ছাতে ক্ষণকালের সহায় পথিকের । ঘরে অাছে যে-কটা আসবাব নিত্য যতই দেখি, ভাবি ওদের মুখের ভাব নারাজ ভৃত্যসম, পাশেই থাকে মম, কোনোমতে করে কেবল কাজচলা গোছ সেবা । এমন ঘরে আঠারো দিন থাকতে পারে কেবা ? কষ্ট বলে একটা দানব ছোটে। খাচায় পুরে নিয়ে চলে আমায় কত দুরে । নীল আকাশে নীল সাগরে অসীম অাছে বসে, কী জানি কোন দোষে ঠেলেঠলে চেপেচুপে মোরে সেখান হতে করেছে একঘরে । হেনকালে ক্ষুদ্র দুখের ক্ষুদ্র ফাটল বেয়ে কেমন করে এল হঠাৎ ধেয়ে বিশ্বধরার বক্ষ হতে বিপুল দুখের প্রবল বস্তা ধারা ; এক নিমেষে অামারে সে করলে আত্মহারা, আনলে আপন বৃহৎ সান্ত,নারে, আনলে আপন গর্জনেতে ইজলোকের অভয়ঘোষণারে । ፃፃ