পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (তৃতীয় খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/২৪৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গোড়ায় গলদ २२¢ খুব মিষ্টি সম্বোধন নিজে বসিয়ে দিতে পারিস। নিজের নামে কবিতা দেখলে কী রকম লাগে কে জানে । 彎 কমলমুখী । মনে হয়, আমার নাম করে আর-কাকে লিখছে। তোর যদি শখ থাকে আমি তোর নামে একটা লিখিয়ে নেব— al ইন্দুমতী। তুমি কেন, সে আমি নিজে করে নেব। আমার যে সম্পর্ক আমি যে কান ধরে লিখিয়ে নিতে পারি। তুমি তো তা পারবে না ! কমলমুখী । সে যখনকার কথা তখন হবে এখন তোর চুলটা বেঁধে দিই চল । ইন্দুমতী । আজ থাক ভাই । আমি এখন ক্ষান্তদিদির ওখানে যাচ্ছি। আমার ভারি দরকার অাছে । চতুর্থ দৃশ্য চন্দ্রকান্তের অন্তঃপুর ক্ষাস্তমণি ও ইন্দুমতী ক্ষাস্তমণি । তোমরা ভাই নানা রকম বই পড়েছ, তোমরা বলতে পার কী করলে डॉरल श्घ्र । ইন্দুমতী ! তোমার স্বামী ঠাট্টা করে বলে, সে কি আর সত্যি । ক্ষাস্তমণি। না ভাই, ঠাট্টা কি সত্যি ঠিক বুঝতে পারিনে। আর, সত্যি হবারই বা আটক কী । আমার বাপ-মা আমাকে ঘরকল্প ছাড়া আর তো কিছুই শেখায়নি। এদানিং বাংলা বইগুলো সব পড়ে নিয়েছি, তাতে অনেক রকম কথাবার্তা আছে কিন্তু সেগুলো নিয়ে কোনো সুবিধে করতে পারছিনে। আমার স্বামী যে রকম চায় সে ভাই আমাকে কিছুতেই মানায় না । ইন্দুমতী । তোমার স্বামীর আবার তেমনি সব বন্ধু জুটেছে, তারাই পাচ জনে পাচ কথা কয়ে তার মন উতলা করে দেয়। বিশেষ, সেদিন বিনোদবাবু আর তোমার স্বামীর সঙ্গে আর একটি কে বাবু আমাদের বাড়িতে গিয়েছিল, তাকে দেখে আমার আদবে ভালো লাগল না । লোকটা কে ভাই ? 萨 顯 ক্ষান্তমণি। কী জানি ভাই । বন্ধু একটি-আধটি তো নয় সবগুলোকে আবার চিনিওনে। ললিতবাবু হবে বুঝি।