পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (তৃতীয় খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৫৯৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


® ፃ8 রবীন্দ্র-রচনাবলী ইহাও স্বাভাবিক। অতএব সর্বপ্রযত্নে আমাদিগকে এমন একটি স্বদেশী কম ক্ষেত্র গড়িয়া তুলিতে হইবে যেখানে স্বদেশী বিদ্যালয়ের শিক্ষিতগণ শিক্ষকতা, পূত কার্য, চিকিৎসা প্রভৃতি দেশের বিচিত্র মঙ্গলকমের ব্যবস্থায় নিযুক্ত থাকিবেন । আমরা আক্ষেপ করিয়া থাকি ষে, আমরা কাজ শিখিবার ও কাজ দেখাইবার অবকাশ না পাইয়া মানুষ হইয়া উঠিতে পারি না। সে-অবকাশ পরের দ্বারা কখনোই সন্তোষজনকৰূপে হইতে পারে না, তাহার প্রমাণ পাইতে আমাদের বাকি নাই । আমি জানি, অনেকেই বলিবেন, কথাটা অত্যন্ত দুরূহ শোনাইতেছে । আমিও তাহা অস্বীকার করিতে পারিব না। ব্যাপারখানা সহজ নহে— সহজ যদি হইত, তবে অশুদ্ধেয় হইত। কেহ যদি দরখাস্ত-কাগজের নৌকা বানাইয়া সাত-সমুদ্র-পারে সাত রাজার ধন মানিকের ব্যবসা চালাইবার প্রস্তাব করে, তবে কারও-কারও কাছে তাহা শুনিতে লোভনীয় হয়, কিন্তু সেই কাগজের নৌকার বাণিজ্যে কাহাকেও মূলধন খরচ করিতে পরামর্শ দিই না । বাধ বাধা কঠিন, সে-স্থলে দল বাধিয়া নদীকে সরিয়া বসিতে অনুরোধ করা কনক্টিটু্যুশনাল অ্যাজিটেশন নামে গণ্য হইতে পারে । তাহা সহজ কাজ বটে, কিন্তু সহজ উপায় নহে । আমরা সস্তায় বড়ো কাজ সারিবার চাতুরী অবলম্বন করিয়া থাকি, কিন্তু সেই সন্তা উপায় বারংবার যখন ভাঙিয়া ছারখার হইয়া যায় তখন পরের নামে দোষারোপ করিয়া তৃপ্তিবোধ করি— তাহাতে তৃপ্তি হয়, " কিন্তু কাজ হয় না । নিজেদের বেলায় সমস্ত দায়কে হালকা করিয়া পরের বেলায় তাহাকে ভারী করিয়া তোলা কতব্যনীতির বিধান নহে । আমাদের প্রতি ইংরেজের আচরণ যখন বিচার করিব, তখন সমস্ত বাধাবিঘ্ন এবং মচুন্য-প্রকৃতির স্বাভাবিক দুর্বলতা আলোচনা করিয়া আমাদের প্রত্যাশার অঙ্ককে যতদূর সম্ভব খাটো করিয়া আনিতে হইবে। কিন্তু, আমাদের নিজের কতব্য বিবেচনা করিবার সময় ঠিক তাহার উলটাদিকে চলিতে হইবে । নিজের বেলায় ওজর বানাইব না, নিজেকে ক্ষমা করিতে পারিব না, কোনো উপস্থিত সুবিধার খাতিরে নিজের আদর্শকে খর্ব করার প্রতি আমরা আস্থা রাখিব না। সেইজন্ত আমি আজ বলিতেছি, ইংরেজের উপর রাগারগি করিয়া ক্ষণিক-উত্তেজনামূলক উদযোগে প্রবৃত্ত হওয়া সহজ, কিন্তু সেই সহজ পথ শ্রেয়ের পথ নহে । জবাব দিবার, জব্দ করিবার প্রবৃত্তি আমাদিগকে যথার্থ কতব্য হইতে সফলতা হইতে ভ্ৰষ্ট করে । লোকে যখন রাগ করিয়া মোকদ্দমা করিতে উদ্যত হয় তখন নিজের সর্বনাশ করিতেও কুষ্ঠিত হয় না। আমরা যদি সেইরূপ মনস্তাপের উপর কেবলই উষ্ণবাক্যের ফু দিয়া নিজেকে রাগাইয়া তুলিবারই চেষ্টা করি, তাহ