পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ত্রয়োবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রবীন্দ্র-রচনাবলী অতএব, মন, তোর কলসি ও দড়ি আন, অতলে মারিস ডুব মিড-ভিকৃটোরিয়ান । কোনো ফল ফলিবে না আঁখিজল-সিচনে ; শুকনো হাসিট তবে রেখে যাই পিছনে । भन्न श्ब्र प्कन विनाप्ञ्चन्न गाग्रोाम्र, শেষ বেলা কেটে যাক ঠাট্রায় ঠাট্রায় । তোমাদের মুখে থাক হাস্তের রোশনাই— কিছু সীরিয়াস কথা বলি তবু, দোষ নাই । কখনো দিয়েছে দেখা হেন প্রভাশালিনী শুধু এ-কালিনী নয়, যারা চিরকালিনী । এ কথাট। ব’লে যাব মোর কনফেশানেই তাদের মিলনে কোনো ক্ষণিকের নেশা নেই। জীবনের সন্ধ্যায় তাহাদেরি বরণে শেষ রবিরেখা রবে সোনা-আঁকা স্মরণে । সুর-স্বরধুনীধারে যে অমৃত উথলে মাঝে মাঝে কিছু তার ঝ’রে পড়ে ভূতলে, এ জনমে সে কথা জানার সম্ভাবন। কেমনে ঘটবে যদি সাক্ষাং পাব না । আমাদের কত ক্রটি আসনে ও শয়নে, ক্ষমা ছিল চিরদিন তাহাদের নয়নে । প্রেমদীপ জেলেছিল পুণ্যের আলোকে, মধুর করেছে তারা যত কিছু ভালোকে । নানারূপে ভোগ স্বধা যা করেছে বরষন তারে শুচি করেছিল স্বকুমার পরশন । দামি যাহা মিলিয়াছে জীবনের এ পারে মরণের তীরে তারে নিয়ে যেতে কে পারে। তবু মনে আশা করি মৃত্যুর রাতেও তাহাদেরি প্রেম যেন নিতে পারি পাথেয়।