পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (দ্বাদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১১৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রবীন্দ্র-রচনাবলী ده চলুন তবে চলুন, বিলম্বে কাজ নেই। মন্ত্রী এই সামান্ত বিষয় নিয়ে যখন এত অধীর হয়েছেন তখন ওঁকে শাস্ত করে এখনই আবার ফিরে আসছি । আমার সর্বদা ভয় হয় পাছে আপনি রাজাপ্রয় ছেড়ে অরণ্যে চলে যান। মহারাজ, মনটা মুক্ত থাকলে কিছুই ত্যাগ করতে হয় না— এই রাজগৃহে যতক্ষণ আমার সন্তোষ আছে ততক্ষণ এই আমার অরণ্য। এক্ষণে তবে আসি । মন্ত্রী, চলো চলো । f ওই যে কবিশেখর আসছে— আমার তপস্যা ভাঙলে বুঝি! ওকে ভয় করি। ওরে পাকাচুল, কান ঢেকে থাক রে, কবির বাণী যেন প্রবেশপথ না পায়। মহারাজ, আপনার এই কবিকে নাকি বিদায় করতে চান । কবিত্ব যে বিদায়-সংবাদ পাঠালে, এখন কবিকে রেখে হবে কী । সংবাদটা কোথায় পৌছল ঠিক আমার কানের উপর। চেয়ে দেখো । পাকাচুল ? ওটাকে আপনি ভাবছেন কী। যৌবনের স্যামকে মুছে ফেলে সাদা করার চেষ্টা। কারিকরের মতলব বোঝেন নি। ওই সাদা ভূমিকার উপরে আবার নূতন রং লাগবে । কই রঙের আভাস তো দেখি নে । সেটা গোপনে আছে। সাদার প্রাণের মধ্যে সব রঙেরই বাসা । চুপ চুপ, চুপ করে, কবি চুপ করে । মহারাজ, এ যৌবন স্নান যদি হল তো হোক না। আরেক যৌবনলক্ষ্মী আসছেন, মহারাজের কেশে তিনি র্তার শুভ্র মল্লিকার মালা পাঠিয়ে দিয়েছেন— নেপথ্যে সেই মিলনের আয়োজন চলছে। আরে, আরে, তুমি দেখছি বিপদ বাধাবে কবি । যাও যাও তুমি যাও— ওরে, শ্রুতিভূষণকে দৌড়ে ডেকে নিয়ে আয় । র্তাকে কেন মহারাজ ! বৈরাগ্য সাধন করব । সেই খবর শুনেই তো ছুটে এসেছি, এ সাধনায় আমিই তো আপনার সহচর। তুমি! ই মহারাজ, আমরাই তো পৃথিবীতে আছি মানুষের আসক্তি মোচন করবার জন্য । । Q