পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (দ্বাদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১৩১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


У У о রবীন্দ্র-রচনাবলী পারব না ? বলো কী । নিশ্চয়ই পারব। সর্দার । কখনও পারবি নে। আচ্ছ। যদি পারি ? সর্দার । তা হলে গুরু ব’লে আমি তোদের মানব । গুরু ! সর্বনাশ ! আমাদের স্বদ্ধ বুড়ে বানিয়ে দেবে ? সর্দার। তবে কী চাস বল । তোমার সর্দারি আমরা কেড়ে নেব । সর্দার। তা হলে তো বাচি রে ! তোদের সর্দারি কি সোজা কাজ। এমনই অস্থির করে রেখেছিস যে হাড়গুলো-স্বদ্ধ উলটো-পালটা হয়ে গেছে — তা হলে রইল কথা ? চন্দ্রহাস । ই রইল কথা। দোলপূর্ণিমার দিনে তাকে ঝোলার উপর দোলাতে দোলাতে তোমার কাছে হাজির করে দেব। কিন্তু তাকে নিয়ে কী করবে সর্দার । সর্দার । বসন্ত উৎসব করব । বল কী । তা হলে যে আমের বোলগুলো ধরতে ধরতেই অঁাটি হয়ে যাবে। আর কোকিলগুলো পেচা হয়ে সব লক্ষ্মীর খোজে বেরবে । চন্দ্রহাস। আর ভ্রমরগুলো অকুস্বার বিসর্গের চোটে বাতাসটাকে ঘুলিয়ে দিয়ে মস্তর জপতে থাকবে । সর্দার। আর তোদের খুলিটা স্ববুদ্ধিতে এমনই বোঝাই হবে যে এক পা নড়তে পারবি নে । সর্বনাশ ! সর্দার। আর ওই ঝুমকো-লতায় যেমন গাঠে গাঠে ফুল ধরেছে তেমনই তোদের গাঠে গাঠে বাতে ধরবে । সর্বনাশ ! সর্দার। আর তোরা সবাই নিজের দাদা হয়ে নিজের কান মলতে থাকবি । সর্বনাশ ! সর্দার। আর— আর কাজ কী সর্দার। থাক বুড়োধরা খেলা। ওটা বরঞ্চ শীতের দিনেই হবে। এবার তোমাকে নিয়েই— সর্দার। তোদের দেখছি আগে থাকতেই বুড়োর ছোয়াচ লেগেছে।