পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (দ্বাবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৩২১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গল্পগুচ্ছ ہ (گا S সতীশের প্রবেণ শশধর । কী সতীশ, খরচপত্র বিবেচনা করে কর না, এখন কী মুশকিলে পড়েছ দেখে দেখি । সতীশ । মুশকিল তো কিছুই দেখি নে । শশধর। তবে হাতে কিছু আছে বুঝি ! ফাস কর নি। সতীশ । কিছু তো আছেই। শশধর । কত ? সতীশ । আফিম কেনবার মতো । বিধু। ( কাদিয়া উঠিয়া ) সতীশ, ও কী কথা তুই বলিস। আমি অনেক দুঃখ পেয়েছি, আমাকে আর দন্ধাস নে । শশধর। ছি ছি, সতীশ । এমন কথা যদি-বা কখনো মনেও আসে তবু কি মার সামনে উচ্চারণ করা যায় । বড়ো অন্যায় কথা । সুকুমারীর প্রবেশ বিধু। দিদি, সতীশকে রক্ষা করে। ও কোনদিন কী করে বসে আমি তো ভয়ে বাচি নে। ও যা বলে শুনে আমার গা কাপে । সুকুমারী। ও আবার কী বলে। বিধু। বলে কিনা আফিম কিনে আনবে। সুকুমারী। কী সর্বনাশ ! সতীশ, আমার গা ছুয়ে বল এমন কথা মনেও আনবি নে। চুপ করে রইলি যে। লক্ষ্মী বাপ আমার । তোর মা-মাসির কথা মনে করিস । সতীশ । জেলে বসে মনে করার চেয়ে এ-সমস্ত হাস্যকর ব্যাপার জেলের বাইরে চুকিয়ে ফেলাই ভালো । সুকুমারী। আমরা থাকতে তোকে জেলে কে নিয়ে যাবে। সতীশ । পেয়াদা । সুকুমারী। আচ্ছা, সে দেখব কতবড়ো পেয়াদ ; ওগো, এই টাকাটা ফেলে দাও-না, ছেলেমানুষকে কেন কষ্ট দেওয়া । শশধর । টাকা ফেলে দিতে পারি, কিন্তু মন্মথ আমার মাথায় ইট ফেলে না মারে। সতীশ । মেসোমশায়, সে ইট তোমার মাথায় পৌছবে না, আমার ঘাড়ে २२||२ >