পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (পঞ্চদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৩১৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সংযোজন । \סo ל নূতন কাল নন্দগোপাল বুক ফুলিয়ে এসে বললে আমায় হেলে,— “আমার সঙ্গে লড়াই ক'রে কখখনো কি পার, !. বারে বারেই হার ।” আমি বললেম, “তাই বই কি ! মিথ্যে তোমার বড়াই, হ’ক দেখি তো লড়াই ।” “আচ্ছ। তবে দেখাই তোমায়” এই ব’লে সে যেমনি টানলে হাত দাদামশাই তখখনি চিৎপাত। সবাইকে সে আনলে ডেকে, চেচিয়ে নন্দ করলে বাড়ি মাত । বারে বারে শুধায় আমায়, "বলো তোমার হার হয়েছে না কি ৷” আমি কইলেম, “বলতে হবে তা কি । ধুলোর যখন নিলেম শরণ প্রমাণ তখন রইল কি আর বাকি । এই কথা কি জান— আমার কাছে নন্দগোপাল যখনি হার মান আমারি সেই হার, লজ্জা সে অামার । ধুলোয় যেদিন পড়ব যেন এই জানি নিশ্চিত, তোমারি শেষ জিত ।” ২৩ অগস্ট [ ১৯২৭ ] রুম্‌ফিউস জাহাজ ●: 이 পরিণয়মঙ্গল হৈমন্তী দেবী ও অমিয়চন্দ্র ਾਬੀਬ পরিণয়-উপলক্ষে উত্তরে দুয়াররুদ্ধ হিমানীর কারাদুর্গতলে প্রাণের উৎসবলক্ষ্মী বন্দী ছিল তন্দ্রার শৃঙ্খলে । যে নীহারবিন্দু ফুল ছিড়ি তার স্বপ্নমন্ত্রপাশ কাঠনের মরুবক্ষে মাধুরীর আনিল আশ্বাস,