পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (সপ্তম খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১১৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কাহিনী । দিবালোক চলে গেল দিবসের পিছু, যমুনা উতলা করি না মিলিল কিছু। সিক্ত বস্ত্রে রিক্ত হাতে শ্রান্ত নত শিরে রঘুনাথ গুরু-কাছে আসিলেন ফিরে। এখনো উঠাতে পারি করজোড়ে যাচে, যদি দেখাইয়া দাও কোনখানে আছে। দ্বিতীয় কঙ্কণখানি ছুড়ি দিয়া জলে গুরু কহিলেন, ‘আছে ওই নদীতলে । २१ জ্যৈষ্ঠ 〉、M দীন দান নিবেদিল রাজভৃত্য, মহারাজ, বহু অনুনয়ে সাধুশ্রেষ্ঠ নরোত্তম তোমার সোনার দেবালয়ে না লয়ে আশ্রয় আজি পথপ্রান্তে তরুচ্ছায়াতলে করিছেন নামসংকীর্তন। ভক্তবৃন্দ দলে দলে ঘেরি তারে দর-দর-উদ্বেলিত আনন্দধারায় ধৌত ধন্ত করিছেন ধরণীর ধূলি। শূন্তপ্রায় দেবাঙ্গন ; ভূঙ্গ যথা স্বর্ণময় মধুভাণ্ড ফেলি সহসা কমলগন্ধে মত্ত হয়ে দ্রুত পক্ষ মেলি ছুটে যায় গুঞ্জরিয়া উন্নীলিত পদ্ম-উপবনে উন্মুখ পিপাসাভরে, সেইমতো নরনারীগণে সোনার দেউল-পানে না তাকায়ে চলিয়াছে ছুটি যেথায় পথের প্রান্তে ভক্তের হৃদয়পদ্ম ফুটি বিতরিছে স্বর্গের সৌরভ। রত্নবেদিকার পরে একা দেব রিক্ত দেবালয়ে ? , or 呼 শুনি রাজা ক্ষোভভরে সিংহাসন হতে নামি গেলা চলি, যেথা তরুচ্ছায়ে S oసా