পাতা:রাধারাণী-বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/৯৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


তৃতীয় খণ্ড : পঞ্চম পরিচ্ছেদ 役° রাজ। মনে করুন, আপনি যেমন, এমনই পাত্র যদি পাই ? আমি একটু চমকিলাম। বলিলাম, “তাহ হইলে অমরনাথের অপেক্ষ ভাল পাত্র হইল না। কিন্তু ছেদো কথা ছাড়িয়া দেও—তুমি কি আমার সঙ্গে রজনীর সম্বন্ধ করিতে আসিয়াছ ?” - রাজচন্দ্র একটু কুষ্ঠিত হইল। বলিল, “হা, তাই বটে। এ সম্বন্ধ করিতেই কর্তা আমাকে ডাকাইয়াছিলেন ।” শুনিয়া, আকাশ হইতে পড়িলাম। সম্মুখে, দারিদ্র্যরাক্ষসকে দেখিয়া, ভীত হইয়া, পিতা যে এই সম্বন্ধ করিতেছেন, তাহা বুঝিতে পারিলাম—রজনীকে আমি বিবাহ করিলে ঘরের বিষয় ঘরে থাকিবে । আমাকে অন্ধ পুষ্পনারীর কাছে বিক্রয় করিয়া, পিতা বিক্রয়মূল্যস্বরূপ হৃত সম্পত্তি পুনঃপ্রাপ্ত হইবেন। শুনিয়া হাড় জলিয়া গেল। রাজচন্দ্রকে বলিলাম, “তুমি এখন যাও। কৰ্ত্তার সঙ্গে আমার সে কথা হইবে।” অামার রাগ দেখিয়া, রাজচন্দ্র পিতার কাছে গেল। সে কি বলিল, বলিতে পারি না । পিতা তাহাকে বিদায় দিয়া, আমাকে ডাকাইলেন । - তিনি আমাকে নানা প্রকারে অনুরোধ করিলেন,—রজনীকে বিবাহ করিতেই হুইবে । নহিলে সপরিবারে মারা যাইব—খাইব কি ? তাহার হুঃখ ও কাতরতা দেখিয়া আমার দুঃখ হইল না। বড় রাগ হইল। আমি রাগ করিয়া চলিয়া গেলাম । পিতার কাছে হইতে গিয়া, আমার মার হাতে পড়িলাম । পিতার কাছে রাগ করিলাম, কিন্তু মার কাছে রাগ করিতে পারিলাম না-—তাহার চক্ষের জল অসহ্য হইল । সেখান হইতে পলাইলাম । কিন্তু আমার প্রতিজ্ঞ স্থি ম রহিল—যে রজনীকে দয়া করিয়া গোপালের সঙ্গে বিবাহিত করিবার উদ্যোগ করিয়াছিল ম—আজি তাহার টাকার লোভে তাহাকে স্বয়ং বিৰাহ করিব ? বিপদে পড়িয়া মনে করিলাম, ছোট মার সাহায্য লইব । গৃহের মধ্যে ছোট মাই বুদ্ধিমতী । ছোট মার কাছে গেলাম। “ছোট মা, আমাকে কি রজনীকে বিবাহ করিতে হইবে ? আমি কি অপরাধ করিয়াছি ?” ছোট মা চুপ করিয়া রহিলেন ।

  • আমি । তুমিও কি ঐ পরামর্শে ?

ছোট মা । বাছ, রজনী ত সংকায়ন্থের মেয়ে ?