পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (ত্রয়োদশ সম্ভার).djvu/২২১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ऋषब्र गोरौ ডাক্তার পুনরায় নৌকা ভাসাইয়া দিলে হীরা সিং অন্ধকারে পুনরায় ৰেন মিলাইয়া গেল। ভারতী কৌতুহলী হইয়া প্রশ্ন করিল, দাদা, এই লোকটিকে পুলিশে এখনও সন্দেহ করে নি ? ডাক্তার কছিলেন, না। ও টেলিগ্রাফ অফিসের পিয়ন, মাছুষের জরুরি তার বিলি করে বেড়ায়, তাই ওকে দিনরাত্রি কোন সময়ে কোনখানেই বে-মানান দেধায় না । সেইমাত্র জোয়ার শুরু হইয়াছে, খাড়ি হইতে বাহির হইয়া বড় নদীতে কতকটা উজাইয়া না গেলে ও-পারের যথাস্থানে নৌকা ভিড়ানো শক্ত, এইজন্য কিনারা ঘোঁসিয়া ধীরে ধীরে অত্যন্ত সাবধানে লগি ঠেলিয়া যাওয়ার পরিশ্রম অনুভব করিয়া ভারতী হঠাৎ বলিয়া উঠিল, থাকগে, কাজ নেই দাদা আমার ওখানে গিয়ে। তার চেয়ে বরঞ্চ চল, তোমার বাড়িতেই ফিরে যাই। জোম্বারের টানে আধঘণ্টাও লাগবে না । - ডাক্তার কহিলেন, কেবল সেজন্ত নয় ভারতী, ওর সঙ্গে দেখা করাও আমার বিশেষ প্রয়োজন । - প্রত্যুত্তরে ভারতী উপহাসভরে হাসিয়া বলিল, ওর সঙ্গে কোন মানুষের কোন প্রয়োজন থাকতে পারে এ তো আমার সহজে বিশ্বাস হয় না দাদা ? ডাক্তার ক্ষণকাল স্তন্ধ থাকিয়া বলিতে লাগিলেন, তোমরা কেউ ওকে জানো না ভারতী, ওর মত সত্যকার গুণী সহসা কোথাও তুমি পাবে না। ওই ভাঙা বেহালাটি মাত্র পুজি করে ও যায়নি এমন জায়গা নেই। তাছাড়া ও ভারি পণ্ডিত । কোথায় কোন বইয়ে কি আছে ও ছাড়া জেনে নেবার আমার আর দ্বিতীয় লোক নেই। ওকে আমি যথার্থ ভালবাগি । ভারতী মনে মনে অপ্রতিভ হইয়া কহিল, তাহলে ওঁকে তুমি মা ছাড়াবার চেষ্টা করো না কেন ? ডাক্তার কছিলেন, আমি কাউকে কোন কিছু ছাড়াবারই ত চেষ্টা করিনে ভারতী একটুখানি চুপ করিয়া বলিলেন, তাছাড়া ও কবি, ও গুণী, ওদের জাত আলাদা। ওদের ভাল-মন্দ ঠিক আমাদের সঙ্গে মেলে না । কিন্তু তাই বলে দুনিয়ার ভাল-মঙ্গের বাধা আইন ওকে মাপ করে চলে না। ওর গুণের ফল তারা সবাই মিলে ভোগ করে, গুৰু দোষের শাকিটুকু সহ করে ও নিজে। তাই মাঝে মাঝে ও বেচারা ৰখন ভারি দুঃখ পায়, তখন আর একটি লোক ষে মনে মনে তার অংশ নেয়, সে অামি । ভারতী কছিল, তুমি সকলের জন্যই দুঃখ বোধ কর দাদা, তোমার মন মেয়েদের ২৯১