পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দশম সম্ভার).djvu/২৮২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


अंद्भ९-जांश्छि7-ज९७jश् নেই ? न1 ।। আদায় করে আমি ছাড়ব । খুড়ি রান্নাঘরে কাজে ছিলেন, বেরিয়ে এসে বললেন, তা হলে যা তোর বাবাকে ডেকে আন গে । হীরু বললে, আমার বাবা স্বর্গে গেছেন, তিনি আসতে পারবেন না,-আমি গিয়ে তোমাদের বাবাদের ডেকে আনব । তাদের কেউ হয়ত বেঁচে আছে—তারা এসে চুল-চিরে আমার বখর ভাগ করে দেবে। তারপর মিনিট-দুয়েক ধরে উভয় পক্ষে যে-ভাষা চলল তা লেখা চলে না। যাবার আগে হীরু বলে গেল, আজই এর একটা হেস্তনেস্ত করে ছাড়ব । এই তোমাদের বলে গেলুম। সাবধান ! রান্নাঘর থেকে খুড়ি বললেন, তোর ভারি ক্ষমতা ! যা পারিস কর গে । হৗক এসে হাজির হলো রাইপুরে । ঘর-কয়েক গরীব মুসলমানের পল্লী । মহরমের দিনে বড় বড় লাঠি ঘুরিয়ে তার তাজিয়া বার করে। লাঠি তেলে পাকামো, গাটে গাটে পেতল বাধানে । এই থেকে অনেকের ধারণা তাদের মত লাঠি-খেলোয়াড় এ অঞ্চলে মেলে না। তারা পারে না এমন কাজ নেই। শুধু পুলিশের ভয়ে শাস্ত হয়ে থাকে । হীরু বললে, বড় মিঞা, এই নাও দুটি টাকা আগাম । তোমার আর তোমার ভায়ের। কাজ উদ্ধার করে দাও, আরো বকৃশিস পাবে। টাকা দুটি হাতে নিয়ে লতিফ মিঞা হেসে বললে, কি কাজ বাৰু ? হীরু বললে, এদেশে কে না জানে তোমাদের দু-ভায়ের কথা ! লাঠির জোরে বিশ্বাসদের কত জমিদারী হাসিল করে নিয়েচ । তোমরা মনে করলে পার না কি । বড় মিঞা চোখ টিপে বললে, চুপ চুপং বাবু থানার দারোগা শুনতে পেলে জার রক্ষে থাকবে না ! বীরনগর গ্রামখানাই যে দু-ভায়ে দখল করে দিয়েচি, এ যে তারা জানে। কেউ চিনতে পারেনি বলেই ত সে-যাত্রা বেঁচে গেছি। হীরু আশ্চৰ্য্য হয়ে বললে, কেউ চিনতে পারেনি ? লতিফ বললে, পারবে কি করে ! মাথায় ইয়া পাগ বাধ, গালে গাল-পাট্টা, কপালে কপাল-জোড়া সিদ্বিরের ফোট, হাতে ছ-হাতি লাঠি,—লোকে ভাবলে হিন্দুর যমপুরী থেকে যমদূত এসে হাজির হলো। চিনবে কি—কোথায় পালাল তার fकांना ब्रहेण म!।

  • १३