পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (দশম সম্ভার).djvu/৩৫৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


লুৰ-সঙ্ঘ কল্যাণীয় 'বেণু’র কিশোর-কিশোরী পাঠকগণ,—উত্তরবঙ্গের রংপুর সহর থেকে তোমাদের এখানি লিখছি। তোমরা জান বোধ হয় বাঙলাদেশে যুব-সমিতি নাম দিয়ে এক সঙ্ঘের স্বাক্ট হয়েছে। হয়ত, আজও তোমরা এর সভ্যশ্রেণীভুক্ত নয়, কিন্তু একদিন এই সমিতি তোমাদের হাতে এসেই পড়বে। তোমরাই এর উত্তরাধিকারী। তাই, এ-সম্বন্ধে দুটো কথা তোমাদের জানিয়ে রাখতে চাই। সমিতির বাধিক সম্মিলনী কাল শেষ হয়ে গেছে । আমি বুড়োমানুষ, তবুও ছেলে-মেয়েরা আমাকেই এই সম্মিলনীর নেতৃত্ব করবার জন্ত আমন্ত্রণ করে এনেছে । তারা আমার বয়সের খেয়াল করেনি। কারণ বোধ করি এই যে, কেমন করে যেন তারা বুঝতে পেরেছে, আমি তাদের চিনি । তাদের আশা ও আকাজক্ষার কথাগুলোর সঙ্গে আমার পরিচয় আছে। আমি তাদের নিমন্ত্রণ গ্রহণ করে আনন্দের সঙ্গে ছুটে এসেছিলাম শুধু এই কথাটাই জানাতে যে, তাদের হাতেই দেশের সমস্ত ভাল-মন্দ নির্ভর করে, এই সত্যটা যেন তারা সকল অস্তর দিয়ে উপলব্ধি করে । অথচ, এই পরম সত্যটাকে বোঝবার পথে তাদের কতই না বাধা । কত আবরণই না তৈরী হয়েছে তাদের দৃষ্টি থেকে একে ঢেকে রাখবার জন্যে । আর তোমরা, যাদের বয়স আরও কম, তাদের বাধার ত আর অন্ত নেই। বাধা যারা দেয়, তারা বলে, সকল সত্য সকলের জানবার অধিকার নেই। এই যুক্তিটা এমনি জটিল যে, না বলে সম্পূর্ণ উড়িয়ে দেওয়াও যায় না, ই বলে সম্পূর্ণ মেনে নেওয়াও যায় না আর এইখানেই তাদের জোর। কিন্তু এমন করে এ বস্তুর মীমাংসা হয় না । হয়ও নি । সৰ্ব্বদেশে, সৰ্ব্বকালে প্রশ্নের পর প্রশ্ন এসেছে;— অধিকারভেদের তর্ক উঠেছে, শেষে বয়স ছেড়ে মানুষের ছোট-বড়, উচু-নীচু অবস্থার দোহাই দিয়ে মানুষকে মানুষ জ্ঞানের দাবী থেকেও বঞ্চিত করে রেখেছে। তোমরাও এমনি তোমাদের জন্মভূমি সম্বন্ধে অনেক তথ্য অনেক জ্ঞান থেকেই বঞ্চিত হয়ে আছ । সত্য সংবাদ পেলে পাছে তোমাদের মন বিক্ষিপ্ত হয়, পাছে তোমাদের ইস্কুল-কলেজের পড়ায়, পাছে তোমাদের একৃজামিনে পাশের পরম বস্তুতে আঘাত লাগে, এই আশঙ্কায় মিধ্যে দিয়েও তোমাদের দৃষ্টি রোধ করা হয়, এ খবর হয়ত তোমরা জানতেও পারে না । e81