পাতা:শিক্ষাবিধায়ক প্রস্তাব.pdf/২২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শিক্ষঞ্চদিগের প্রক্তিউপদেশ । ১১ হয়, বুদ্ধি-শক্তি বিকশিত হয়, এবং কার্ধ্যোপশৈগী বিষয়-জ্ঞান বৃদ্ধি হয়, এমণ্ড ষত্ব করা উচিত। কারণ বঙ্গীয় বিদ্যালয় সকলে র্যাহার" সন্তানগণকে বিদ্যাগ্যক্ষনর্থ নিযুক্ত ক্ষরিৱেল, উহারদিগের অনেকেরই এমত্ত ক্ষমতা নাই যে তনুজগণকে বহু বৎসর পাঠশালায় রাখম । দেহমাত্র নির্বাহের সাহাপ্তার্থ অতি শীঘ্রই ভাঙ্গদগকে বিষয় কর্ঘ্যে ব্যাপৃত করিতে হইবে । অস্তএব হে অধ্যাপকবর্গ ! তোমরা স্বয়ং ইংরাজী বিদ্যালয়ের ছাত্র হও বৰ্ণ কেবল সংস্কৃত শাস্ত্রে শিক্ষণ গুণগু হইয়। থাক, যদ্যশি পাঠাবস্থার পর বিষয়-জ্ঞান বৃদ্ধি ল। করি। থাক, তবে এইক্ষণে ষে কৰ্ম্মে প্ৰৱৰ্ত্ত হইBu BBBBBBB BBB BBS BB BB BBBS BB পূর্কে ইংরাজী পড়িয় থােক, তবে কোল দেশে কোল, ং জল ছিলেন কে কি নিয়ম সংস্থাপন করিয়ছিলেন, তস্থার প্রচালিগের কি মঙ্গলামঙ্গল হইয়াছিল, ইত্যাদি ক’লেক বিষয় ভাম দিগের অবগতি আছে । ভোমরা শুম্ভকুরের অমিীত অঙ্কসকল্প ও অনায়াসে সাধন করিতে গার । sেtয়র ক্ষেত্রব্যবহার কাণ্ডেও কিছু মাত্র মুল মহ । আর অনুমান হয়, গদার্থ তত্বেও তোমাদিগের কিঞ্চিৎ সৃষ্টি তলছে। ভোমরা এইসকল প্রধান ৰিম্বর জাম বট, কিন্তু শঙ্ক হয়, ‘হ গুম পঞ্চম’ কাহাকে বঙ্গে, কর বুড়িতে কাহুম হয়, জরীপের রীতি কি প্রকার এবং কোন সময়ে স্কোম শস্যের চাস হয়, এই সকল ভক্তি