পাতা:শিখ-ইতিহাস.djvu/৩৬৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


SRe শিখ-ইতিহাস কামানগুলি লইয়া বিপক্ষ ইংরাজসৈন্য আক্রমণ করিল ; তৃষ্ণ এবং যুদ্ধপ্রমে ক্লান্ত ইংরাজ সৈন্যের প্রতি ঘন ঘন অগ্নি বর্ষণ হইতে লাগিল। নিদারুণ শীতে ইংরাজ সৈন্যের হস্ত-পদাদি অসাড় হইয়া পড়িয়াছিল ; খড়ের আগুণ জালিয় তাহার শরীরের উষ্ণতাবিধান করিতেছিল। সেই সঙ্কেত পাইয়া, সতর্ক শিখগণ তাহাদিগকে প্রবলবেগে আক্রমণ করিল। ইংরাজগণ তখন বিপদসাগরে ভাসমান হইলেন। সৈন্যদলের মধ্যে বিষম বিশৃঙ্খলা উপস্থিত হইল। সকলেই হতবুদ্ধি হইয়া পড়িলেন। কি বিদেশ, কি ভারতবর্ষে, ইংরাজদিগের বিত্তভোগী সৈন্যদল সর্বত্রই সাহস ও বীরত্বের পরিচয় প্রদান করিয়াছিল। তখন স্বশিক্ষার অভাব ছিল বটে, কিন্তু অবিচ্ছিন্ন কৃতকার্যতা লাভে সে অভাব হইত না। কিন্তু কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই পঞ্চ সহস্র বিদেশীয় ইংরাজ-সৈন্য দেখিয়া আশ্চর্য হইল যে, দেশীয় সৈন্য তাহাঁদের যুদ্ধ-চাতুর্থ এবং রণ-কৌশল সকলই শিক্ষা করিয়াছে। এক্ষণে এমন সঙ্কটকাল উপস্থিত যে, তাহাদিগকে অপরিসীম কষ্ট স্বীকার করিতে হইবে। সেই চিরস্মরণীয় রজনীতে ইংরাজগণ কদাচিত জয়লাভ করিতে পারিয়াছিলেন ; তাহারা যে স্থানে দণ্ডায়মান ছিলেন, তাহা তাহারা আয়ত্ত করিতে সমর্থ হন নাই। র্তাহাদের সন্নিকটে আর কোন মজুত সৈন্য ছিল না ; বিপক্ষ শিখ-সৈন্য পশ্চাদগমন করিয়া, দ্বিতীয় সৈন্যদলের সহিত মিলিত হইয়াছিল। তাহার এক্ষণে অতিরিক্ত সৈন্য সাহায্যে পুনরায় যুদ্ধে প্রবৃত্ত হইতে লাগিল। তখন ইংরাজগণ ফিরোজপুরে পলায়নের মনস্থ করিলেন ; তাহাদের সে সঙ্কল্প অযৌক্তিক বলিয়া মনে হইল না। কিন্তু সাহসী বীর লর্ড গাফ ভিন্নরূপ কল্পনা স্থির করিলেন ; তিনি এবং লর্ড হার্ডিঞ্জ অতিশয় নিভীকতার সহিত ইংরাজসৈন্য এবং শ্রমশীল পদাতিক সৈন্যদলের পুরোভাগস্থিত আগ্নেয়াস্ত্র সাহায্যে শত্রুদিগকে আক্রমণ করিলেন। পরিশেষে আংশিক জয়লাভে সমর্থ হইয়', ইংরাজগণ কিছুকালের জন্য বিশ্রামের স্বযোগ পাইলেন। ২২শে ডিসেম্বর প্রাতঃকালে শিখদিগের অবশিষ্ট সৈন্য তাঁহাদের শিবির হইতে বিতাড়িত হইল। কিন্তু বেলা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে, শিখ-সৈন্যদলের দ্বিতীয় অংশ রণ-সাজে সজ্জিত হইয়া অগ্রসর হইল। তখন পরিশ্রান্ত, ক্লান্ত এবং ক্ষুধার্ত ইংরাজসৈন্য দেখিল, সম্মুখে ঘোর দুৰ্দৈব উপস্থিত ; তাহারা বুঝিল,—ঘোরতর যুদ্ধ সম্ভাবনা, এবং সে যুদ্ধে কোনমতেই জয়লাভ হইবে না। তেজ সিং এই সৈন্যদলের অধিনায়ক ছিলেন। র্তাহার একাগ্র এবং অকপট সৈন্যদল, হুর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গেই ইংরাজদিগকে আক্রমণ করিবার জন্য জিদ করিতে লাগিল। কিন্তু ভীতিপ্রদায়ক খালসা" সৈন্ত যাহাতে পরাজিত হইয়া ছিন্নবিচ্ছিন্ন হয়, তৎসাধনই তেজ সিংহের উদ্দেশু ছিল । স্বতরাং লাল সিংহের সৈন্যদল সর্বস্বলে বিধস্ত হইয়া পলায়নপর নজওয়া পর্যন্ত, তেজ সিং বিলম্ব করিতে লাগিলেন। ইত্যবসরে তাহার প্রতিপক্ষগণ পূর্ণ উদ্যমে পতাকামূলে সমবেত হইল। এমন কি, শেষ পর্যন্ত তেজ সিং কয়েকটি ধও যুদ্ধে ব্যাপৃত হইলেন ; তিনি কয়েকটি কৃত্রিম যুদ্ধের ভাণ করিলেন মাত্র, কিন্তু দৃঢ়প্রতিজ্ঞতার সহিত শত্রুপক্ষকে আক্রমণ করিলেন না। পরিশেষে আপন সৈন্যদলকে