পাতা:শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃত পঞ্চম ভাগ.djvu/২২০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নরেন্দ্র ও ট্রীরামকৃষ্ণের প্রচার কার্য্য & oC. religion of the Hindus”—Lecture of Hindusom (Chicago Parliament of Religions.) আমেরিকায় অনেক স্থানে স্বামীজী বক্তৃতা দিয়েছিলেন, সকল স্থানেই এই কথা । Hartfrod নামক স্থানে বলিয়াছিলেন— “The next idea that I want to bring to you is that religion does not consist in doctrines or dogmas. *** The end of all religions is the realisation of God in the soul. Ideas and methods may differ, but that is the central point. That is the realisation of God, something behind this world of sense—this world of eternal eating and drinking and talking nonsence—this world of shadows and selfishness. There is that beyond all books, beyond all creeds, beyond the vanities of this world—and that is the realisation. of God within yourself. A man may believe in all the churches in the world, he may carry on his head all the sacred books ever written, he may baptise him-self in all the rivers of the earth ; still if he has no perception of God. I would class him with the rankest atheist.” স্বামীজী তাহার ‘রাজযোগ’ নামক গ্রন্থে বলিয়াছেন যে, আজকাল লোক, বিশ্বাস করে না যে, ঈশ্বরদর্শন হয় ; লোকে বলে, হা ঋষিরা অথবা খৃষ্ট প্রভৃতি মহাপুরুষগণ আত্মদর্শন করিয়াছিলেন বটে, কিন্তু আজকাল আর তাহা হয় না। স্বামীজী বলেন, অবশ্য হয়—মনের যোগ ( concentration ) অভ্যাস কর, অবহু হৃদয় মধ্যে র্তাহাকে পাইবে— “The teachers all saw God, they all saw their own souls and what they saw they preached. Only there is. this difference that in most of these religions especially in modern times a peculiar claim is put before us and that