পাতা:শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃত পঞ্চম ভাগ.djvu/২৭৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চতুর্থ পরিচ্ছেদ আগে বিদ্যা ( Science ) না আগে ঈশ্বর ? ত্রীরামকৃষ্ণ ( বঙ্কিমের প্রতি )—কেউ কেউ মনে করে, শাস্ত্র না পড়লে, বই না পড়লে ঈশ্বরকে পাওয়া যায় না। তারা মনে করে, আগে জগতের বিষয়, জীবের বিষয় জানতে হয়, আগে সায়েন্স ( Science ) পড়তে হয় ( সকলের হাস্ত )। তারা বলে, ঈশ্বরের স্বষ্টি এ সব না বুঝলে ঈশ্বরকে জানা যায় না। তুমি কি বল ? আগে Science না আগে ঈশ্বর ? বঙ্কিম—ই, আগে পাচটা জানতে হয়, জগতের বিষয়। একটু এ দিককার জ্ঞান না হলে, ঈশ্বর জানবে কেমন ক’রে ? আগে পড়া-শুনা ক’রে জানতে হয় । ত্রীরামকৃষ্ণ—ঐ তোমাদের এক । আগে ঈশ্বর, তার পর স্বষ্টি । র্তাকে লাভ করলে, দরকার হয়ত সবই জানতে পারবে ।

  • যদি যদু মল্লিকের সঙ্গে আলাপ করতে পারো যে সে ক'রে, তা হ’লে যদি তোমার ইচ্ছা থাকে, যদু মল্লিকের ক’খানা বাড়ী, কত কোম্পানীর কাগজ, ক’খানা বাগান, এও জানতে পারবে। যদু মল্লিকই ব’লে দেবে। কিন্তু তার সঙ্গে যদি আলাপ না হয়, বাড়ী ঢুকতে গেলে দারোয়ানরা যদি না ঢুকতে দেয়, তা হ’লে ক’খানা বাড়ী, কত কোম্পানীর কাগজ, ক’খানা বাগান, এ সব ঠিক খবর কেমন ক’রে জানবে ? তাকে জানলে সব জানা যায়, * কিন্তু সামান্ত বিষয় জানবার আকাজক্ষ থাকে না । বেদেও এ কথা আছে। যতক্ষণ না লোকটিকে দেখা যায় ঃ ততক্ষণ তার গুণের কথা কওয়া যায় ; সে যেই সামনে আসে, তখন ও-সব কথা বন্ধ হ’য়ে যায়। লোকে তাকে নিয়েই মত্ত হয়, তার সঙ্গে আলাপ ক’রে বিভোর হয়, তখন আর অন্ত কথা থাকে না।

+ “আগে ঈশ্বর লাভ, তার পর স্বষ্টি বা অন্ত কথা । বাল্মীকিকে রাম মন্ত্র

  • “তস্মিন বিজ্ঞাতে সৰ্ব্বমিদং বিজ্ঞাতং ভবতি ।” + মানুষ জীবনের উদ্যে (End of life) ঈশ্বরলাভ