পাতা:শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ কথামৃত পঞ্চম ভাগ.djvu/৪৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


•ඵෆ শ্ৰীশ্ৰীরামকৃষ্ণ কথামৃত—৫ম ভাগ [ ১৮৮২ ডিসেম্বর বসিয়া ঠাকুর ঈশ্বর চিস্তা করিতেছেন। ক্রমে ভগবাবিষ্ট হইলেন। ভাব উপশমের পর বলিতেছেন, “মা ওকেও টেনে নাও। ও তাত দিন ভাবে থাকে ! তোমার কাছে আসা যাওয়া কচ্ছে।” ঠাকুর ভাবে বাবুরামের কথা কি বলিতেছেন ? বাবুরাম, মাষ্টার, রামদয়াল প্রভৃতি বসিয়া আছেন। রাত্রি ৮টা ৯টা হুইবে । ঠাকুর, সমাধিতত্ব বলিতেছেন। জড় সমাধি, চেতন সমাধি, স্থিত সমাধি, উন্মান সমাধি । বিদ্যাসাগর ও Gengish Khan, ঈশ্বর কি নিষ্ঠুব ? ঐরামকৃষ্ণের উত্তর | সুখ দুঃখের কথা হইতেছে । ঈশ্বর এত দুঃখ কেন করেছেন ? মাষ্টার—বিদ্যাসাগর অভিমান বাবে বলেন, “ঈশ্বরকে ডাকবার আর কি দরকার ! দেখ জেঙ্গিস খী যখন লুট পাট আরম্ভ করলে তখন অনেক লোককে বন্দী করলে ; ক্রমে প্রায় একলক্ষ বন্দী জমে গেল। তখন সেনাপতিরা এসে বল্লে মহাশয়, এদের থাওরাবে কে ? সঙ্গে এদের রাখলে তামাদের বিপদ । কি করা যায় ? ছেড়ে দিলেও বিপদ । তখন জেঙ্গিস খা বলেন, তাহলে কি করা যায় ; ওদের সব বধ কর । তাই কচাকচ করে কাটবার হুকুম হয়ে গেল। এই হত্যাকাণ্ড তো ঈশ্বর দেখলেন ? কই একটু নিবারণ তো কল্পেন না । তা তিনি থাকেন থাকুন, আমার দরকার বোধ হচ্ছে না। আমার তো কোন উপকার হ’লো না ।” ঐরামকৃষ্ণ—ঈশ্বরের কার্য্য কি বুঝা যায়, তিনি কি উদ্দেশ্যে কি করেন ? তিনি স্বষ্টি, পালন, সংহার সবই কচ্ছেন। তিনি কেন সংহার কচ্ছেন আমরা কি বুঝতে পারি? আমি বলি, মা আমার বোঝবারও দরকার নাই, তোমার পাদপদ্মে ভক্তি দিও। মানুষ জীবনের উদ্দেশু এই ভক্তি লাভ। আর সব মা জানেন। বাগানে আম খেতে এসেছি ; কত গাছ, কত ডাল, কত কোটা পাতা, এসব বসে বসে হিসাব করবার আমার কি দরকার। আমি আম থাই, গাছ পাতার হিসাবে আমার দরকার নাই। ঠাকুরের ঘরের মেঝেতে আজ রাত্রে বাবুরাম, মাষ্টার ও রামদয়াল শয়ন করিলেন । :