পাতা:শ্রীশ্রীহরি লীলামৃত.djvu/১৪১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


* ১৩২ মাতুষ বলিয়া আৰ্ত্তি সদা যেন কয় । যজমান হিংসা যেন তো হ’তে না হয় ৷ ব্রাহ্মণ কহিছে আমি এই ভিক্ষা চাই। তব পদে থাকে মন কর প্রভু তাই ॥ তাহ শুনি ব্রাহ্মণেরে করিল বিদায় । বিদায় হুইয়। দ্বিজ যায় নিজাগয় ॥ ব্রাহ্মণ আরোগ্য হল শরীর পুলক। শ্ৰীশ্ৰী হরি লীলামৃত রচিল তারক ॥ বিধবা রমণীর শ্বেত কুষ্ঠ মুক্তি । পয়ার । মঙ্গপ্রভু স্বরুপেরে বলে বাছাধন। আমি এবে করি বৎস্য স্বস্থানে গমন ॥ তোর বাট আসিলাম বাঞ্ছা পূর্ণ হ’ল । শ্বেত রোগ রমণী দেখিতে বাকী র’ল ॥ তোর ঘরে অন্ন ভুক্ত রহে বহু দিন । । দেখিব সে নবীনা কি হ’য়েছে প্রবীণ ॥ স্বরুপ বলিল প্রভু আসিলেন যাবে। সেই নারী প্ৰণমিল শ্ৰীপদ পল্লবে ॥ প্রভু কন আমি তাহ লক্ষ্য করি নাই। ডেকে আন তাহাকে এখন দেখে যাই ॥ আজ্ঞা মতে স্বরুপ আনিল ততক্ষণে। লোটায়ে পড়িল নারী প্রভুর চরণে ॥ প্রভু বলে রে স্বরুপ। পূৰ্ব্ব বাক্য রাখ৷ সবার সম্মুখে একে ম৷ বলিয়। ডাক ॥ রায় কহে যবে দয়া হ’ল মম ভাগ্যে। শ্ৰীধামে বসিয়া দাসে যবে দিলে অজ্ঞে ॥ সেই হ’তে ঘুচিয়াছে শমনের শঙ্কা । কাম জয়ী হইয়াছি মেরে জয় ডস্ক। এখন নাহিক ভয় মা বলে ডাকিতে । সেই হ’তে এই ভাব আমার মনেতে ॥ মা ব’লে ডাকিতে যবে দিলেন হুকুম। : সে হতে এ দেহে নাই কামের জুলুম ॥ " সেই হ’তে আমাকে ছাড়িয়া গেছে কাম । নির্বিঘ্নে বসিয়া জপ করি হরিনাম । প্রভু বলে আমি তাহা জেনেছি অন্তরে। দওবৎ কর সবে আমি যাই ঘরে ॥ এ মেয়ের শ্বেত রোগ আমি জানি তাই। এক সঙ্গে থাক বটে তুমি দেখ নাই। শ্ৰীশ্ৰীহরিলীলামৃত। স্বচক্ষে দেখিলে রোগ প্রত্যয় জন্মিবে। তোর ভক্তি জোরে রোগ এবে সেরে যাবে । স্বরুপ বলেন আমি কিছুই না জানি। শ্ৰীমুখের বাক্য সত্য. এই মাত্র মানি ॥ প্রভু কহে আর কেহ জানিতে নারিল । অনেকের মনে এই সন্দেহ রহিল ॥ মনের বিকার নাই তোম। দুজনার। আমি তাহ ভালমতে জেনেছি এবার ॥ বাহির করহ রোগ দেখুক সকলে। মনের বিকার যাক হরি হরি বলে ॥ স্বরুপ বলেছে সেই রমণীর ঠাই । কোথা তব শ্বেত রোগ বের কর তাই ॥ প্রভু বলে রোগ আছে হাটুর উপরে। আর একটুক আছে বক্ষের ভিতরে ॥ স্বরুপ ফেলিল তার বক্ষের কাপড়। সবে দেখে রোগ আছে বক্ষের উপর। স্বরুপ কহেন সেই নারীর গোচরে । আছে নাকি শ্বেত রোগ হাটুর উপরে ॥ কাটুর উপরে রোগ দেখাইল নারী। স্বরুপ ক্রনদন করে হরিপদ ধরি ॥ সারে বা না সারে রোগ তাতে ক্ষতি নাই । শ্ৰীচরণে থাকে মতি এই ভিক্ষা চাই ॥ ঠাকুর বলেন সেই নারীকে চাহিয়া । মনের বিকার তব গেছে কি ঘুচিয় ॥ ঠাকুয়ের পদ ধরি কহে সেই নারী । যা বলাও তাহা অামি বলিবারে পারি ॥ ত্ৰাণ কৰ্ত্ত আপনি ঘুচিল যম পাপ । আমি স্বরুপের মা স্বরুপ মম বাপ ॥ । ডাকা মাত্র সেই শ্বেতরোগ সেরে গেল । সভtশুদ্ধ হরিধ্বনি করিয়া উঠিল । ঠাকুরের পদে দোহে তখনে লোটায় । রচিল তারক মৃত্যুঞ্জয়ের কৃপায় ॥ গোস্বামী গোলোক ও অজগর বিবরণ। পয়ার । একদিন মহাপ্রভু বসিয়া নির্জনে । পাগল গোলোকঙ্গীরে বলিল যতনে ॥