পাতা:১৯০৫ সালে বাংলা.pdf/১৩০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


 [ ১১৪ ] লাগিলেন। প্রতিনিধিবর্গ সেই স্বদেশভক্ত জন সমূহের সম্মুখে উপস্থিত হইলে তাঁহাদিগকে পুষ্পমাল্যে সুশোভিত করা হইল । সৰ্ব্বাগ্রে দেশমান্য শ্ৰীযুক্ত সুরেন্দ্রনাথ বন্দোপাধ্যায়, তৎপার্শ্বে শ্ৰীযুক্ত কালীপ্রসন্ন কাব্যবিশারদ, শ্ৰীযুক্ত কৃষ্ণকুমার মিত্র, এন্টী সার্কুলার সোসাইটির সভ্য স্বদেশভক্ত যুবকবৃন্দের সমভিব্যাহারে অগ্রসর হইতেছিলেন। এন্টী সারকুলার সোসাইটির সভ্যগণ নিজ নিজ দ্রব্য সম্ভার মস্তকে বহন করিয়া "ধায় যাবে জীবন চ’লে, মাগো, জগং মাঝে তোমার কাজে বন্দে মাতরম্ বলে” সঙ্গীতটী গাহিতে গাহিতে যখনষ্টেশন হইতে আসিভেছিলেন, তখন কার দৃপ্ত প্রত্যক্ষ না করিলে অনুধাবন করা করা যায় না। প্রথমে একদল অতি বৃদ্ধ ব্রাহ্মণ অগ্রসর হইয়া স্বরেন্দ্র বাবুকে আশীৰ্ব্বাদ করিলেন । শকটের অশ্ব খুলিয়া দেওয়া হইল । স্বরেন্দ্র বাবু প্রভৃতি সেই শকটে আরোহণ করিলেন, উৎসাহী যুবকবৃন্দ সেই শকট টানিয়া আনিতে লাগিল। জনস্রোতের গতি ফিরিল, সকলে হারিসন রোড দিয়া কলেজ স্কোয়ারে সমবেত হইলেন। স্বরেন্দ্র বাবু শকটের উপর দণ্ডায়মান হইয়। সেই বিপুল জনসঙ্ঘকে লক্ষ্য করিয়া বক্তৃতা করিলেন। তিনি, বলিলেন যে, ট্রেণে আলিবার সময় যে সকল ষ্টেশনে গাড়ী থামিয়াছিল, সেই সকল ষ্টেশনেই সমাগত ব্যক্তিবৃন্দকে দেশের বর্তমান অবস্থা, এবং আমাদের কৰ্ত্তব্য সম্বন্ধে তিনি উপদেশ, দিয়া আসিয়াছেন—সমস্ত রাত্রি তাহার এই ভাবেই অতিবাহিত হইয়া গিয়াছে। প্রত্যেক ষ্টেশনেই শত শত লোক উৎকণ্ঠিত