পাতা:আমার বাল্যকথা ও আমার বোম্বাই প্রবাস.pdf/৮২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


28 আমার বাল্যকথা কত পাগলামী ছড়া আওড়াতেন সব মনে নেই। দুএকটা বলি– অজস গরস দুই সপ—এই কালীয়দমনের দুই সর্দাব রাম ও শ্রাম— ধন্য ধন্য রাম শুiম তোমাদের কার্য্য তোমাদের কার্য্য সকলের অনিব{ৰ্য্য যখন তোমরা গিয়া চড় যার ঘাড়ে অজস। গরস আদি সবে তারে ছাড়ে । অজস গরসা যেন ছাড়ল, এখন রামগ্রামের হাত থেকে রক্ষা কবে কে ? সাপ ও বেণ্ডের কথোপকথন সাপ—“জিহা লিড়ি বিড়ি দিড়ি কিচড়ি মিচড়ি করি কুপ—” (আমি যদি কুপ কবে তোকে খেয়ে ফেলি ? ) ব্যাঙ—“হম যদি পানিয়ে ডুব গয়া তুসম ভূসড়ি খায় গুজড়ি মুঙ্গরি করি গুপ—” ( আমি যদি গুপ করে জলে ডুবে যাই ? ) নবীনবাবু চার রকম ভিন্ন প্রকৃতি লোকের কথা বলতেন— বেগবেগ, বেগচের, চেরবেগ, চেরচের । স্মরণশক্তির তারতম্যে এই চার রকম লোক হয় । বেগবেগী,-যে শীঘ্র শেখে শীঘ্র ভুলে যায় ; বেগচেরা,-যে শীঘ্র শেখে চিরদিন মনে রাখে ; চেরবেগ,—যে দেরীতে শেথে শীঘ্র ভুলে যায় ; চেরচের,--যে দেরীতে শেখে দেরীতে ভোলে । এর মধ্যে অবশু বেগচের হওয়াই প্রার্থনীয়। তার নীচে চেরচের । চেরবেগাই অধম । উপরে নবীনবাবুকে বিদূষকরূপেই চিত্রিত করে দেখান গেল, কেননা তার ঐ দিক্টই আমাদের চোখের সামনে থাকত ; কিন্তু তা ছাড়া আর আর দিকেও তিনি ব্যাখ্যানগেল । সাহিত্য-সমাজে তার প্রতিপত্তি সামান্ত ছিল না । কেবল আমাদের ঐ বয়সে তার বিদ্যাসাধ্যের সর্বাঙ্গান মৰ্য্যাদা আমরা বুঝতে পারতুম না। খ্ৰীযুক্ত অক্ষয় কুমার দত্ত প্রথমে তত্ত্ববোধিনী পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন। তিনি অবসর নেবার পর নবনবাবু সম্পাদকীয় ভার গ্রহণ করেন ও দক্ষতাসহকারে কয়েক বৎসর সেই কাৰ্য্য সম্পাদন করেন । তত্ত্ববোধিনী ভিন্ন তথনকার অন্তান্ত সংবাদপত্রেও র্তার প্রবন্ধাদি প্রকাশিত হ’ত। ঐতিহাসিক তত্ত্বাবলীতে তার বিশেষ ব্যুৎপত্তি ছিল এবং বিশ্বকোষের পাতা উণ্টে দেখলে তার পাণ্ডিত্যপূর্ণ অনেকগুলি লেখা দেখতে পাওয়া যায়।