পাতা:খাদ্যতত্ত্ব.djvu/১০০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শ্বেতসার tyዊ প্রস্তুত প্রণালী –প্রথমতঃ সাগু শীতল জলে ধুইয়। আড়াই পোয়া শীতল জলে ভিজাইয়া অগ্নির নিকট দুই ঘণ্টা রাখিতে হইবে । পরে ১৫১৬ মিনিট জাল দিয়া ফুটাইতে হইবে ; সৰ্ব্বদা আলোড়ন করিতে হইবে । সাগুদানা জলের সহিত মিশ্রিত হইতে অনেক সময়ের প্রয়োজন হয় । পরে ইচ্ছামত লেবুর রস লবণ বা শর্কর যোগ করিয়া পান করা যায় । ইচ্ছা হইলে জাল দিবার সময়ে ইহাতে এক পোয়া দুগ্ধ ও যোগ করা যায় । শ্বেতসার শ্বেতসার বা পালে সাধারণতঃ বীজে, কোন কোন গাছের মুলে, ত্বকে, গুড়িতে ও পত্রে, প্রধান তঃ প্রাপ্ত হওয়া যায় । ইহা তৈল, ঘৃত ও চৰ্ব্বির হায় দেহ উষ্ণ কারক ; কিন্তু মেদকারী নহে । শীতল জলে ইহার আকৃতির কোন পরিবর্তন হয় না । প্রস্তুত প্রণালী –পালো প্রস্তুত করা বড় কঠিন নহে । বরিশাল জেলায় অনেক গৃহস্থ শট হইতে পালো প্রস্তুত করিয়া থাকে। স্থানীয় চিকিৎসকগণ এই পালো ব্যারামের সময় পথ্যরূপে ব্যবহার করেন । ইহা দ্বারা নানারূপ মিষ্টান্নও প্রস্তুত হইয়া থাকে কাৰ্ত্তিক হইতে চৈত্র মাস পৰ্য্যন্ত শটা তুলিয়া সংগ্ৰহ করা হয় । বৃষ্টি পাইয়া শট গজাইলে তাহ হইতে অধিক পালে প্রাপ্ত হওয়া যায় না ; কারণ, তখন পালো মুল হইতে গাছের নুতন বৰ্দ্ধনশীল অংশে পরিব্যাপ্ত হয় । শটার বাকল ফেলিয়া প্রথমতঃ জলে ধৌত করিয়া টেকিতে কুটিয়া লওয়া হয়। পরে এই কোটা শটা জলে চট্‌কাইয়া একট চটে ছাকিয়া লইতে হয় । এই জল প্রায় ৩ ঘণ্টা কোন পাত্রে রাখিয়া দিলে, পাত্রের তলায় শুভ্র বর্ণের পালে জমা হইয়া পতিত হয় । তৎপরে পালোর উপরিস্থিত জল ফেলিয়া দিয়া, ইহা জল মিশ্রিত করিয়া পূৰ্ব্ববৎ পাত্রে রাখিয়া দেওয়া হয় । পালো পাত্রের তলে