পাতা:খাদ্যতত্ত্ব.djvu/১০৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চতুর্দশ অধ্যায় ਿਜੋਡ਼ ছানা, ঘৃত ও শর্করা দ্বারা নানা প্রকার উপাদেয় সামগ্ৰী প্রস্তুত হয়। অধিকাংশ উপাদেয় খাদ্য গুরুপাচ্য সুতরাং বিবেচনা পুৰ্ব্বক এই সকল সামগ্ৰী গ্রহণ করা উচিত । বাজারের খাদ্য সাধারণতঃ বিকৃত সামগ্ৰী হইতে প্রস্তুত হয়, সুতরাং বাজারের খাবার ব্যবহার না করাই উচিত । ইউরোপের মিষ্টান্নের মধ্যে পুডিংই প্রধান । তাহা এইরূপ মৃদু উত্তাপে প্রস্তুত হয় যে তাহা অামাদের মিষ্টাক্সের স্তায় গুরুপাচ্য হয় না । সুতরাং তৎসম্বন্ধেও কয়েক প্রকার প্রস্তুত প্রণালী লিখিত হইয়াছে । সন্দেশ সন্দেশ বাঙ্গালীর সৰ্ব্বোৎকৃষ্ট মিঠাই । উত্তম সন্দেশে প্রোটড শতকরা ১৮ ও ঘৃত ২০ ভাগ থাকে । ইহাতে শর্করার পরিমাণও শতকরা প্রায় ৪০ ভাগ । নিকৃষ্ট সন্দেশে শর্করার পরিমাণ অধিক এবং ছানা ও ঘৃতের পরিমাণ তদ্রুপ অল্প । আহারের পরে সুস্থ বক্তির পক্ষে অল্প পরিমাণে সন্দেশ ব্যবস্থা করা যায় । সন্দেশ বিশেষ পুষ্টিকারক কিন্তু খুব লঘু পথ্য নহে । সন্দেশ প্রস্তুত করিতে প্রথমতঃ ছানার দানা ভালরূপে ভাঙ্গিয়৷ লইতে হয় । অন্যদিকে একসের ছানার জন্ত সাধারণতঃ অৰ্দ্ধসের শর্করার গাঢ়রস প্রস্তুত করিয়া উহাতে মৃদু উত্তাপে ছানা দিয়া ভাল করিয়া নাড়িবে । যখন ছানা রসে আটিয়া আসিবে তখন কড়াই নাবাইবে ; এবং যতক্ষণ তপ্ত থাকিৰে ততক্ষণ নাড়িবে । ইচ্ছা হইলে নাবাইয়া ইহাতে কয়েকটা এলাচ চুর্ণ যোগ করা যাইতে পারে। কখন সন্দেশের