পাতা:গীতরত্ন গ্রন্থঃ (১৮৭০)- রামনিধি গুপ্ত.djvu/১১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


●ांकौन शख् िकरश्न “दéभांनांशिश्नऊि शृङ मशङ्कां प्रशंदांङ • তেজশ্চন্দ্র বায়বাহাঙ্কুর এতন্নগরে শুভাগমমানন্তর কোন ৰূপ কৌশলক্রমে তাহীর গান শুনিয়াছিলেন, । মুরসিদীবাদস্থ মৃত মহারাজ মহানন্দ রায় বাহtছুব কলিকাতীয় জালিয়। বহুদিন অবস্থানপুৰ্ব্বক প্রতি দিবস এক নিয়মে বাবুর সহিত একত্র হইয়া মমের জানন্দে আমোদ প্রমোদ করিতেন । উক্ত মহারাজের খ্ৰীমতী নামী এক ৰূপবতী গুণৰতী বুদ্ধিশালিনী বারাঙ্গন ছিল, এই বারবিলাসিনী বামনিধি বাবুকে অন্তঃকরণের সহিত ভাল বাসিত ও অতিশয় স্নেহু করিত এবং বাবুও তাহার বিস্তর গৌরব ও সম্মান করিতেন, ইহাতে কেহই অনুমান করিতেন এই স্ত্রীমতী নিধুবাবুর প্রণয়িণী প্রিযতম বেগু! কিন্তু বিজ্ঞমণ্ডলীয় অনেকে এ কথা অগ্রাহ কবিয়া কহিতেন তিনি লম্পট ছিলেন না, কেবল স্তুতি বিনয় স্নেহ এবং নিৰ্ম্মল প্রণয়ের বগু ছিলেন। এই প্রযুক্ত তাহাকে অতিশয় স্নেহ করিতেন এবং কিয়ৎ ক্ষণ হাস্ক পরিহাল কাব্য আলাপ ও গীত বাদ্য করিষা অলিতেন আর সেখানে বসিযা মনের মধ্যে যখন যেমন ভাবেব উদয হুইত তৎক্ষৰtৎ ওtহাঁরই এক ২ গীত রচনা করিতেন, এবং সেই গীত সকল রাগে এবং সকল তালে গান করিতেন, এতাদৃশ যে যখন যে গীত যে রাগে গান করিতেন বোধ হইত যে এ গীত এই রাগে फेछव श्ब्रांरझ । t ১২১৯ সালের পুর্ব মৃত মহামতি মহাৰাজা নবকৃষ্ণ বাছাছুরের সমাজে বাঙ্গালি মহাশয়দিগের মধ্যে “আখড়াই, গাহনার অত্যন্তামোদ ছিল। তখন উক্ত মহারাজের নিকট কুলুইচন্দ্র সেন নামক এক জন বৈদ্য আখড়াই বিষয়ে অভিশষ প্রতিপন্ন ছিলেন । ঐ মহাশয় সঙ্গীত শাস্ত্রে অদ্বিতীয পাবদশি ছিলেন, তাহাকে स्रांशृंख्ॉके १ोiश्मीद £क छन अश्वानांठी दशांझे रुर्डद, ३ डिनि রামনিধি গুপ্তের অতি নিকট সম্বন্ধীয় মাতুল পুত্র ছিলেন কিন্তু