পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৮১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


 কৃষ্ণদয়াল কহিলেন, “কিন্তু বাবা, আমি বলছি, তােমাদের ও-সব প্রায়শ্চিত্ত-টিত্ত হবে না। আমার ওতে একেবারেই মত নেই। এখনই সব বন্ধ করে দাও।”

 অবিনাশ ভাবিল, বুড়ার এ কী রকম জেদ। ইতিহাসে বড় বড় লােকের বাপরা নিজের ছেলের মহত্ত্ব বুঝিতে পারে নাই এমন দৃষ্টান্ত ঢের আছে, কৃষ্ণদয়ালও সেই জাতেরই বাপ। কতকগুলা বাজে সন্ন্যাসীর কাছে দিনরাত না থাকিয়া কৃষ্ণদয়াল যদি তাঁহার ছেলের কাছে শিক্ষা গ্রহণ করিতে পারিতেন, তাহা হইলে তাঁহার ঢের উপকার হইত।

 অবিনাশ কৌশলী লােক; যেখানে বাদপ্রতিবাদ করিয়া ফল নাই, এমনকি মরাল এফেক্টেরও সম্ভাবনা অল্প, সেখানে সে বৃথা বাক্যব্যয় করিবার লােক নয়। সে কহিল, “বেশ তাে মশায়, আপনার যদি মত না থাকে তাে হবে না। তবে কিনা, উদ্যােগ-আয়ােজন সমস্ত হয়েছে, নিমন্ত্রণপত্রও বেরিয়ে গেছে, এ দিকে আর বিলম্ব ও নেই, তা নয় এক কাজ করা যাবে- গােরা থাকুন, সেদিন আমরাই প্রায়শ্চিত্ত করব— দেশের লােকের পাপের তো অভাব নেই।”

 অবিনাশের এই আশ্বাসবাক্যে কৃষ্ণদয়াল নিশ্চিন্ত হইলেন।


 কৃষ্ণদয়ালের কোনাে কথায় কোনােদিন গােরার বিশেষ শ্রদ্ধা ছিল না। আজও সে তাঁহার আদেশ পালন করিবে বলিয়া মনের মধ্যে স্বীকার করিল না। সাংসারিক জীবনের চেয়ে বড় যে জীবন সেখানে গােরা পিতামাতার নিষেধকে মান্য করিতে নিজেকে বাধ্য মনে করে না। কিন্তু তবু আজ সমস্ত দিন তাহার মনের মধ্যে ভারী একটা কষ্ট বােধ হইতে লাগিল। কৃষ্ণদয়ালের সমস্ত কথার মধ্যে যেন কী-একটা সত্য প্রচ্ছন্ন আছে, তাহার মনের ভিতরে এই রকমের একটা অস্পষ্ট ধারণা জন্মিতেছিল। একটা যেন আকারহীন দুঃস্বপ্ন তাহাকে পীড়ন করিতেছিল, তাহাকে কোনােমতেই তাড়াইতে পারিতেছিল না। তাহার কেমন এক-রকম মনে হইল, কে যেন সকল দিক

৫৬৯