পাতা:জয়তু নেতাজী.djvu/২৭০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২৩e জয়তু নেতাজী তাহাঁদের একমাত্র কৰ্ত্তব্য ; লক্ষ লক্ষ নর-নারী কেবল মছাত্মার দর্শন" লাভ করিয়াই ধন্ত হইতে লাগিল । সুভাষচন্দ্র লিখিয়াছেন— “During the Congress session, the Mahatma used to hold a public prayer in the morning and unprecedented crowds attended it. No propaganda could be more effective in drawing public support.” (P. 290), শেবে এমন হইল যে, ভারতে গান্ধীর ধৰ্ম্মমত বা রাজনীতিব প্রতিবাদ করে এমন একজন ব্যক্তিও রহিল না—ঐ গণ-মনোভাবই বিস্তা-বুদ্ধি ও বিচারশক্তিকে পরাভূত করিয়া গান্ধীকেই ত্রিশকোটির ‘একমেবাদ্বিতীয়ম্ করিয়া তুলিল যাহারা মহাত্মার মাহাত্ম্য হৃদয়ঙ্গম করিবার জষ্ঠ দুই চক্ষু মুদ্রিত করিতে পারিল না, তাহারা জাতির জীবনরঙ্গমঞ্চ হইতে নিৰ্ব্বাসিত হইল ; যাহার কোনরূপে টিকিয়া থাকিতে চাছিল তাহারা নিজেদের বিবেক ও বিদ্যাবুদ্ধি জলাঞ্জল দিয়া প্রকাতে গান্ধী-মন্ত্র গ্রহণ করিল ; তাহারাই গান্ধীবাদ ও গান্ধীধৰ্ম্মের ভtয্যরচনায় তাহাদের সেই বিদ্যাবুদ্ধির পরাকাষ্ঠী প্রদর্শন করিল ; বড় বড় বৈজ্ঞানিক ও দার্শনিক, এমন কি, ধর্মমঠের গুরু বা অধ্যক্ষ ও গান্ধীর জল্পগান করিতে লাগিল । , এমনই করিয়া ভারত হইতে স্বাধীন চিন্তা, সত্যনিষ্ঠা, এবং জ্ঞানের আলোক নিৰ্ব্বাপিত হইয়াছে, এবং তাহারই ফলে ভারত "নেশন" হইয়া উঠিয়াছে। এমন কাজ ভারতে পুৰ্ব্বে কেহ করিতে পারে নাই, পৃথিবীর আর কোন অংশে এমন স্বাধীনত ধৰ্ম্মী নেশন’ জন্মলাভ করে লাই । এই 'নেশন’কে ভারতের ভাগ্যবিধাতাও যেমন, ব্রিটিশ গভর্ণমেন্টও তেমনই ভালরূপ চিনিম্নাছিল—দুইয়ের কাহারও আর কোন চিস্তার কারণ রহিল না । তথাপি গান্ধী-সেলার সেই অনর্থক উপন্দ্রবের কারণ ঐ স্থূলবুদ্ধি ইংরাজ বুঝিতে না পারিয়া বড়ই বিরক্ত হইত,—ব্রিটিশ-সিংহ কখনও লাজুল-আন্দোলন, কখনও দংষ্ট্রাৰ্যাদান, কখনো বা দুই চারিট}