পাতা:দুই বোন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৮৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।
১১২
দুই বোন

অসন্মান হয়।” উৰ্মি কটাক্ষ ক’রে বলেছিল, “ভগবান মনু তবে কাকে প্ৰয়োগ করতে বলেন।” শশাঙ্ক গম্ভীর মুখে বললে, “অসম্মানের সনাতন অধিকার ভগ্নীপতির। অামার পাওনা অাছে। সেটা। সুদে ভারি হয়ে উঠল।” “মনে তো পড়ছে না॥” “পড়বার কথা নয়। তখন ছিলে নিতান্ত নাবালিকা। সেই কারণেই তোমার দিদির সঙ্গে শুভলগ্নে যেদিন এই সেীভাগ্যবানের বিবাহ হয়, সেদিন বাসর-রজনীর কৰ্ণধার পদ গ্ৰহণ করতে পারোনি। অাজ সেই কোমল করপল্লবের অরচিত কানমলাটাই রুপ গ্ৰহণ করছে সেই করপল্লবরচিত জুতো যুগলে। ওটার প্রতি আমার দাবি রইল জানিয়ে রেখে দিলুম।” দাবি শোধ হয়নি, সে-জুতো যথাসময়ে প্ৰণামীরুপে নিবেদিত হয়েছিল দাদার চরণে। তারপর কিছুকাল পরে শশাঙ্কর কাছ থেকে উমি একখানি চিঠি পেল। পেয়ে খুব হেসেছে সে। সেই চিঠি আজও তার বাক্সে অাছে। অাজ খুলে সে আবার পড়লে: “কাল তো তুমি চলে গেলে। তোমার স্মৃতি পুরাতন হোতে না হোতে তোমার নামে একটা কলঙ্ক