পাতা:বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৩৪০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১২৯০ বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় । কেমতে দেখিব আমি বৃন্দাবন স্থান। সহায় নাহিক মোর কি হবে বিধান ॥ এমতে চিন্তিতে তার মতি উপজিলা। তাহা প্রকাশিয়া এই শ্লোক উচ্চারিলা ॥ শ্ৰীগুরু-চরণ তার প্রাপ্তির সহায়। সে পাদ-স্মরণমাত্ৰ সৰ্ব্বসিদ্ধি হয়। প্রথমেতে শ্ৰীগুরু-চরণ স্মৃতি কৈলা । নিজীভীষ্টদেব নিজ গুরুতে মানিলা ॥ দোহা সঙ্কীৰ্ত্তন-রূপ মঙ্গলাচরণ। করিয়া করিলা যাত্রা শ্ৰীবৃন্দাবন ॥ এ মঙ্গলাচরণ অন্ত গ্রন্থকর্তা হেন । বিঘ্ননাশ লাগি নহে শুনহ কারণ ॥ প্রেমে উনমত চিত্ত সদা মহাশয়। গ্রন্থ-করণের কথা তাথে কৈছে হয়। তবে যদি বল কেনে শ্লোক-বন্দবাণী । সংস্কৃত দাক্ষিণাত্যের সহজ কথনী ॥ তাথে লীলা শুক মহা-কবীন্দ্র পণ্ডিত। ঞিহার মুখে শ্লোকবাণী এ কোন বিচিত্র । কিন্তু শুদ্ধ বৈষ্ণবের স্বভাব এক হয়। শয়ন-গমনে গুরু কৃষ্ণকে স্মরয় ॥ তেঞি সোমগিরি নাম গুরু হয় মোর। জয়যুক্ত হউ সৰ্ব্ব মঙ্গলের ওর । চিন্তামণি হেন যার বৈভব বিস্তর। আশ্রয় মাত্রেই দেই সৰ্ব্বাভীষ্ট-সার । প্রণাম করিএ সেই গুরুর চরণে । বিশ্ব-প্রকাশ জয় শব্দ প্রণামে বাখানে ॥