পাতা:বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৬১৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রাচীন সঙ্গীত—কবির গান–রাম বহু—১৭৮৬-১৮২৮ খুঃ । (ఆ) পীরিতেরো সাধ ঘুচালে দুঃখে জালালে জীবন, না জানি কারণ কও কেন ভাঙ্গিল তোমার মন ॥ যা হোক ভালবাসিলে খেয়ে আমার মাথা, পরের কথায় পীরিতি ভেঙ্গে পালালে ৷ করে আমার উপর রাগ, রাখলে যার সোহাগ, এখন তার আদরে তোমার আদর বাড়িল ৷ তোমার পরিতি কি রীতি হলো হে যেমন হংসী মুষিকেরি প্রায়। হংসী প্রেমের দায়ে পাখা দিয়ে ঢাকে তায়, সে পক্ষ কেটে পালায় ॥ বিধিমতে আমায় মজালে দুঃখে জালালে হৃদয়। বুঝে দেখে মনে দর্পণে মুখ দেখা বই নয় ॥ তোমার অন্তরে নাই একটু টান। । বল—“ভালবাসি’–সেটা কেবল দেতোর হাসি (১) হাস প্রাণ ॥ প্রেমে ধরে তোমার ধ্যান, পেলেম ভাল জ্ঞান, এখন ঘরে পরে সকল শক্র হাসিল ॥ এ ভাবের ভাব রবে কত দিন । প্রাণ-যতনে মন যোগও না, পরিত্যাগও কর না, আমি যেন হয়ে আছি জালে গাথা মীন ॥ যে ভাব ছিল পূৰ্ব্বেতে প্রাণ সে ভাব দেখিনে । তোমার অভাব দেখে স্বভাব-দোষে আমি ভুলতে পারি নে, দেখা হলে সখা বলে আদরে ডাকি । তুমি বল—“ভালত জ্বালা এ পাপ আবার কি ? আপন বোলে সাধতে গেলে তুমি ভাব ভিন্‌ ৷ যৌবন জনমের মত যায়। সেত আশা-পথ নাহি চায় ॥ কি দিয়ে গো প্রাণ-সখি রাখিব উহায় ॥ জীবন যৌবন গেলে আর নাহি ফিরে পুনৰ্ব্বার, বাচি তে বসন্ত পাব, কান্ত পাব পুনরায়। (১) শুধু দন্ত-বিশিষ্ট, অন্তঃকরণ-হীন ব্যক্তির হাসি। సిలి