পাতা:বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৯৪৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
১৮৮৮
বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয়।

তোমা বিনা নাহি জানি শুন শ্যাম রায়।
এবে কি হইবে প্রভু চিন্তহ উপায়॥
আইল যে অভিমন্যু করিয়া সাজনি।
হাতে খড়্গ আমারে ত কাটিবে এখনি॥
অভিমন্যু দেখি প্রভু বড় ভয় বাসি।
রক্ষা কর রমানাথ আপনার দাসী॥
সখীগণ কৃতাঞ্জলি করেন তখন।
দেখিয়া ঈষৎ হাসে মুরলীবদন॥
বিপদতারণ প্রভু ভাবেন মনেতে।
শ্রীকৃষ্ণের উপায় স্থিরকরা।এ সঙ্কটে শ্রীমতীকে রাখিব কি মতে॥
মনে মনে যুক্তি তবে করে কালসোণা।
অভিমন্যু হয় কালীমন্ত্রে উপাসনা॥
ইষ্ট দেখি অভিমন্যু প্রণাম করিবে।
ইষ্ট পূজা দেখি শ্রীমতীকে তুষ্ট হবে॥
মনে বিচারিয়া প্রভু বিপিনবিহারী।
শ্রীমতীকে বলে তবে কৌতুক যে করি॥
কি করিব কমলিনী কি আছে উপায়।
হেন বুঝি অভিমন্যু কাটিবে তোমায়॥


শ্রীমতী বলেন প্রভু তুমি যার নাথ।
পলকেতে হয় যার কোটি ইন্দ্রপাত॥
তার কাছ ছার অভিমন্যু গণি কিসে।
যে হেতু কাতর আমি শুন হৃষিকেশে॥
ব্রজপুরে মোর নাম শ্যাম-কলঙ্কিনী।
শাশুড়ী হইল কাল পাপ-ননদিনী॥
স্বচক্ষে দেখিয়া গেল তব সনে কেলি।
সবিশেষ তারা সেই দুষ্টে দিবে বলি॥
সঙ্গেতে করিয়া আনে দেখাবার তরে।
এইত কলঙ্ক মোর রহিল অন্তরে॥
রাধার আক্ষেপ।অভিমন্যু কাটিবেক তোমার গোচর।
তিলেক আমার প্রভু তাহে নাহি ডর॥
জটিলা কুটিলা হেথা দেখিল আসিয়া।
বিশেষ সকল কথা কহিলেক গিয়া॥